page contents
সমকালীন বিশ্ব, শিল্প-সংস্কৃতি ও লাইফস্টাইল
ব্লগ

আগের ধারণা ভুল—নিয়ন্ত্রিত মদপান বেশিদিন বাঁচতে সাহায্য করে না

আগের একটি গবেষণায় দেখা গিয়েছিল যে নিয়ন্ত্রিত মদ্যপান কিছু বেশিদিন বাঁচতে সাহায্য করতে পারে। কিন্তু নতুন একটি গবেষণায় এই ব্যাপারটি ভুল প্রমাণিত হয়েছে।

আগের প্রায় ৯০টি গবেষণার সম্পূর্ণ ফলাফল পর্যবেক্ষণ করে গবেষকরা জানিয়েছেন যারা একদমই মদ পান করে না তাদের তুলনায়, যারা নিয়ন্ত্রিতভাবে মদপান করে তাদের আয়ু বৃদ্ধি ঘটে না।

এই গবেষণা প্রতিবেদনের সহ-লেখক তানিয়া চিকরিটজ বলেছেন, তথাকথিত ‘নিয়ন্ত্রিত’ পানকারীরা অ-মদ্যপায়ীদের চেয়ে বেশিদিন বাঁচে না। তানিয়া চিকরিটজ অস্ট্রেলিয়ার জাতীয় মাদক গবেষণা প্রতিষ্ঠানের পরিচালক এবং তিনি একজন প্রফেসর।

সবাই এই বিষয়টির সাথে একমত না হলেও কোনো কোনো স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞ এর সাথে একমত।

বোস্টন বিশ্ববিদ্যালয়ের স্কুল অব মেডিসিনের মেডিসিন ও জনস্বাস্থ্য বিভাগের অধ্যাপক ড. আর কার্টিস এলিসন বলেছেন, অনেক বৈজ্ঞানিক তথ্য থেকে দেখা যায় নিয়মিত সামান্য পরিমাণে বা নিয়ন্ত্রিতভাবে অ্যালকোহল পান করলে মধ্যবয়স্ক ও বয়স্ক ব্যক্তিদের লাইফস্টাইল হেলদি থাকে।

চিকরিটজ ও তার সহকর্মীরা জানিয়েছেন আগের গবেষণাগুলিতে একটি গুরুত্বপূর্ণ ব্যাপার বাদ দেওয়া হয়েছিল—যারা প্রায়ই মদ্যপান থেকে বিরত থাকে তারা আসলে অসুস্থতার কারণে বিরত থাকে। ফলে, আগের গবেষকরা ধরে নিয়েছিলেন মদ্যপান থেকে বিরত থাকা ব্যক্তিরা আগে মারা যায়। এই ব্যাপারটি থেকে অনুমান করে বলা হয়েছে নিয়ন্ত্রিতভাবে মদ্যপানকারীরা কিছু বেশিদিন বাঁচে।

নতুন এই গবেষণায় আগের ৮৭ টি গবেষণা পুনরায় পর্যবেক্ষণ করা হয়েছে। এই পর্যবেক্ষণের সময়, আগের গবেষণাগুলি থেকে যারা অসুস্থতার কারণে মদ্যপান করত না তাদের কেসগুলি বাদ দেওয়া হয়েছে।

চিরকিটজ বলেছেন, বাদ দেওয়ার পরে গবেষকরা দেখেছেন ‘নিয়ন্ত্রিত মদ্যপানকারীরা কিছুদিন বেশি বাঁচে’ এই ধারণাটি ভুল।

তিনি আরো বলেন, পর্যালোচনা থেকে দেখা গেছে যারা একদম অকেশনাল ড্রিংকার বা দশদিনের বেশি সময়ে হয়ত একবার মদ্যপান করে তাদের আয়ু সবচেয়ে বেশি। কিন্তু এটাকে আমলে নেওয়ার মত কিছু নেই, এটা সামান্য পরিসংখ্যানগত ভুল। কারণ, এই ক্ষেত্রে মদের পরিমাণ এত কম যে তা স্বাস্থ্যগত ক্ষেত্রে তেমন কোনো প্রভাব ফেলে না।

চিকরিটজ আরো বলেন, “এটা পরিষ্কার যে মধ্য বয়সে বা বেশি বয়সে সামান্য বা নিয়ন্ত্রিতভাবে মদ্য পান করার কারণে স্বাস্থ্য ভালো থাকে না। অ্যালকোহল একটি বৈধ পানীয় এবং অনেকেই এটা উপভোগ করে। তবে সামান্য পরিমাণ অ্যালকোহলেরও ওষুধ হিসেবে বা মৃত্যুকে প্রতিরোধ করার ক্ষেত্রে কোনো কার্যকারীতা নেই। আর অ্যালকোহলে আসক্তি বা বেশি পরিমাণে পান করার ক্ষতি তো আছেই। স্বাস্থ্যগত দিক থেকে বরং কম পান করার কোনো ক্ষতি নেই।”

তবে কার্টিস এলিসন বলেছেন, নতুন এই পর্যবেক্ষণটি নিরপেক্ষ নয়, বায়াজড। বড় পরিসরের গবেষণার প্রশ্ন আনলে এটি টিকে না। তিনি বলেন, আপনাকে সবসময় মানুষের কথার উপর ভিত্তি করে আগাতে হয়েছে, কে কী পরিমাণ পান করে সেই তথ্য দেওয়ার ব্যাপারে ভুল হওয়ার সম্ভাবনা সবসময়ই আছে।

alcohol,-chart

অ্যালকোহলজনিত বিবিধ ক্যান্সার। পুরুষ ও মহিলাতে ঝুঁকিহারে ভিন্নতা।

এলিসন আরো বলেছেন, মানুষ এবং অন্যান্য প্রাণীদের ওপর ব্যবহারিক পরীক্ষা করে দেখা গেছে, সামান্য পরিমাণ অ্যালকোহলিক দ্রব্য, বিশেষ করে ওয়াইনের কারণে হৃদরোগ কম ঘটে, এমনকি ইঁদুর ও কবুতরের বেলায়ও।

টরোন্টো বিশ্ববিদ্যালয়ের ডালা লানা স্কুল অব পাবলিক হেলথের অ্যাডিকশন পলিসির প্রধান ও অধ্যাপক জারগেন রেহম অ্যালকোহলের এই উপকারীতার সাথে একমত হয়েছেন। তিনি বলেন তবে মাত্র একবার পান করলেও কিছু কিছু ক্ষেত্রে ঝুঁকি বেড়ে যায়, যেমন স্তন ক্যান্সারের ক্ষেত্রে।

তিনি বলেন, স্বাস্থ্যগত উপকার পাওয়ার জন্যে মদ্যপানের থেকে অনেক ভালো রাস্তা আছে।

নতুন এই পর্যবেক্ষণ প্রতিবেদনটি জার্নাল অব স্টাডিজ অন অ্যালকোহল অ্যান্ড ড্রাগসের ২০১৬, মার্চ সংখ্যায় প্রকাশিত হয়েছে।

About Author

সাম্প্রতিক ডেস্ক
সাম্প্রতিক ডেস্ক