চিনিযুক্ত কোমল পানীয় আপনার স্বাস্থ্যের জন্য ভাল না, কিন্তু উচ্চ প্রোটিনের খাবারের সাথে সোডা পানীয় পান করা হলে তা আরো বেশি ক্ষতিকর হতে পারে।

‘বিএমসি নিউট্রিশন’ জার্নালে প্রকাশিত একটি গবেষণাপত্রের দেওয়া তথ্য অনুযায়ী, ইএসডিএ—অ্যাগ্রিকালচারাল রিসার্চ সার্ভিস গ্র্যান্ড ফোর্কস হিউম্যান নিউট্রিশন সেন্টারের গবেষকরা ২ দিনে ২৭ জন প্রাপ্তবয়স্ক মানুষকে পর্যবেক্ষণ করেছেন।

যেসব খাবারে বিভিন্ন অনুপাতে ম্যাক্রো পুষ্টি উপাদান ও ভিন্ন ভিন্ন পরিমাণ আমিষ, চর্বি ও শর্করা থাকে সেগুলির সাথে চিনিযুক্ত পানীয় খেলে তা দেহের বিপাকীয় প্রক্রিয়া ও ক্ষুধার ওপর কেমন প্রভাব ফেলে তা পরীক্ষা করে দেখা হয় এতে।

দেখা যায়, চিনিযুক্ত পানীয়ের সাথে আমিষ গ্রহণের মাত্রায় পরিবর্তন আনলে আপনার ক্ষুধা, খাবারের প্রতি রুচি, শক্তিক্ষয় এবং চর্বি সংরক্ষণের ওপর প্রভাব পড়ে।

সেই ২৭ জনকে একদিন উচ্চ মাত্রার প্রোটিন যুক্ত খাবারের সাথে কোনো পানীয় দেওয়া হয় নাই, আর অন্যদিন চিনি মিশ্রিত মিষ্টি পানীয় খেতে দেওয়া হয়েছিল। ‘ফ্যাট অক্সিডেশন’ নামের যে প্রক্রিয়ায় শরীরের চর্বি কণা ভেঙে যায়—সে প্রক্রিয়া এর প্রভাবে ৮% কমে আসে।

সাধারণ ভাবনা থেকে এমনটা মনে হতে পারে যে, কোমল পানীয় থেকে আমরা যে শক্তি পাই তা হয়ত চর্বি কমাতে বেশি সাহায্য করবে। কিন্তু বাস্তবে তেমনটা হয় না। এতে শক্তি গ্রহণ ও ক্ষয়—দুই দিকেই প্রভাব পড়ে। গ্রহণের ক্ষেত্রে, পানীয় থেকে যে বাড়তি শক্তি পাওয়া যায় তা মানুষকে আরো বেশি তৃপ্ত করতে পারে না। আর শক্তিক্ষয়ের বেলায়, বাড়তি ক্যালোরি নিঃশেষিত তো হয়ই না বরং তা ফ্যাট অক্সিডেশনের মাত্রা কমিয়ে ফেলে।

সিএনএন এর দেওয়া তথ্যমতে, চিনি মিশ্রিত পানীয়ের কারণে প্রতি বছর প্রায় ১ লাখ চুরাশি হাজার মানুষের মৃত্যু হয়। এছাড়া সায়েন্স ডেইলি বলছে, কৃত্রিম মিষ্টি তৈরির উপকরণ আপনার মস্তিষ্কেরও ক্ষতি করে।

Facebook Comments

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here