এশিয়া কাপ-এ ইন্ডিয়া-পাকিস্তান ম্যাচ—সোশ্যাল মিডিয়া ট্রলের আশঙ্কায় সানিয়া মির্জা

এবার এশিয়া কাপের সবচেয়ে আকাঙ্ক্ষিত ম্যাচ ১৯ সেপ্টেম্বরের পাকিস্তান বনাম ইন্ডিয়ার ম্যাচ। দুবাই ইন্টারন্যাশনাল ক্রিকেট স্টেডিয়ামে মুখোমুখি হবে ইন্ডিয়া ও পাকিস্তান। এই দুই প্রতিবেশী দেশ যখনই একে অন্যের মুখোমুখি হয়, তখনই ক্রিকেট ভক্তদের মধ্যে উত্তেজনা তৈরি হয়।

এই ম্যাচ শুরু হওয়ার আগে ইন্ডিয়ার টেনিস তারকা সানিয়া মির্জা সোশ্যাল মিডিয়া ট্রল প্রসঙ্গে টুইটারে একটি মেসেজ দিয়েছেন। সানিয়ার টুইটটিতে সোশ্যাল মিডিয়া ট্রল নিয়ে খানিকটা তিরষ্কার ছিল। সানিয়া লিখেছেন, ম্যাচ শুরু হতে এখনও যেহেতু ২৪ ঘণ্টা বাকি আছে, কয়েকদিনের জন্য সোশ্যাল মিডিয়া থেকে সাইন আউট করাটা এখন নিরাপদ কারণ এখানে যে পরিমান ননসেন্স কথাবার্তা বলা হবে তা একজন ‘রেগুলার’ ব্যক্তিকে অসুস্থ করে দিতে পারে, একজন প্রেগন্যান্টের কথা না হয় বাদই দিলাম। লেটার গাইজ, তোমরা নিজেরাই নিজেদেরকে পরাজিত করো, কিন্তু মনে রাখবে এটা একটা ক্রিকেট ম্যাচ মাত্র! পরে দেখা হবে।

ইন্ডিয়া এবং পাকিস্তান শেষবার মুখোমুখি হয়েছিল ২০১৭ সালের ১৮ জুন লন্ডনে, আইসিসি চ্যাম্পিয়নস ট্রফির ফাইনালে। ইন্ডিয়া হয়ত দ্রুতই সে ম্যাচের কথা ভুলে যেতে চেয়েছে।

ফাখার জামানের দুর্দান্ত সেঞ্চুরির সাথে সেই ম্যাচে পাকিস্তানের স্কোর ছিল ৪ উইকেটে ৩৩৮। পরে ব্যাট করতে নেমে মোহাম্মদ আমির ও হাসান আলির দুর্দান্ত ফার্স্ট বোলিং এর সামনে দাঁড়াতেই পারে নি। সেই ম্যাচে পাকিস্তানের শাদাব খানের লেগ স্পিনও ছিল অসাধারণ।

ইন্ডিয়া হয়ত এশিয়া কাপের এই ম্যাচে সেই পরাজয় শোধ করতে চাইবে। তবে চাওয়াটা যত সহজ, সেটা করে দেখানো তত সহজ হওয়ার কথা না। সীমিত ওভারের ক্রিকেটে এখন পাকিস্তান বেশ শক্তিশালী দল, সুতরাং ইন্ডিয়ার জন্য কাজটা অনেক কঠিন।

ইন্ডিয়ার অধিনায়ক ভিরাট কোহলি দলে নেই, তিনি এই টুর্নামেন্টে বিশ্রামে আছেন। আর কোহলিকে ছাড়া ইন্ডিয়া যে দুর্বল সেটা এই টুর্নামেন্টে হংকং এর সাথে প্রথম ম্যাচেই ভালভাবে বোঝা গেছে।

পরিবারের সঙ্গে সানিয়া মির্জা

সানিয়া মির্জার প্রসঙ্গে আবার ফিরে যাই। সানিয়া মির্জার এই টুইটের পিছনে বা এই সাবধানতার পিছনে অবশ্যই কারণ আছে। পাকিস্তানের ক্রিকেটার শোয়েব মালিককে বিয়ে করার কারণে সানিয়া মির্জাকে অনেক বার সোশ্যাল মিডিয়ায় আক্রমণের শিকার হতে হয়েছে।

গত মাসে পাকিস্তানের স্বাধীনতা দিবসে টুইট করার জন্য সানিয়াকে টুইটারে আক্রমণ করা হয়েছিল। তবে সানিয়াও সেই আক্রমণের জবাব ভালভাবেই দিয়েছিলেন। যেমন, এক টুইটার ব্যবহারকারী সেই টুইটের জন্য সানিয়াকে উদ্দেশ্য করে লিখেছিল, হ্যাপি ইন্ডিপেন্ডেন্স ডে… আপনার স্বাধীনতা দিবস কি আজকেই না!

সানিয়া তখন তার মত করেই জবাব দিয়েছিলেন, জ্বী না, আমার এবং আমার দেশের স্বাধীনতা দিবস আগামীকাল, তবে আমার স্বামী এবং ওনার দেশের স্বাধীনতা দিবস আজকেই।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here