রবার্ট ডি নিরো দীর্ঘদিন ধরেই ট্রাম্পের বড় একজন সমালোচক।

সম্প্রতি রবার্ট ডি নিরো তার এক বক্তব্যে বলেছেন ‘ফাক ট্রাম্প’। ডি নিরোর বক্তব্যের ৩৬ ঘণ্টা পরে এর প্রতিক্রিয়ায় ট্রাম্প ডি নিরোকে অভিহিত করেন ‘খুব অল্প বুদ্ধিমত্তার একজন ব্যক্তি’ হিসাবে।

কিম জং উনের সাথে ডিপ্লোম্যাটিক মিটিং সেরে ফিরতে ফিরতেই, ১২ জুন ডি নিরোর উপরে তার ক্ষোভ ব্যক্ত করেছেন। একটি অ্যাওয়ার্ড অনুষ্ঠানে বিখ্যাত অভিনেতা রবার্ট ডি নিরো রাগ প্রকাশ করে প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পকে গালি দিয়েছেন, এবার ট্রাম্প তার প্রতিক্রিয়ায় পালটা ক্ষোভ ঝাড়লেন।

কিছুদিন আগে টনি অ্যাওয়ার্ড অনুষ্ঠানে রবার্ট ডি নিরো স্টেজে ঢুকে মাইক্রোফোনের সামনে দাঁড়িয়ে ডোনাল্ড ট্রাম্পকে উদ্দেশ্য করে চিৎকার করে বলেন, “আই’ম গনা সে ওয়ান থিং—ফাক ট্রাম্প!” তিনি বলেন, “ইটস নো লংগার ডাউন উইথ ট্রাম্প, ইটস ফাক ট্রাম্প!” (ভিডিও লিংক)

 

টনি অ্যাওয়ার্ড অনুষ্ঠানে রবার্ট ডি নিরো।
গালির প্রতিক্রিয়ায় দর্শক।

সেই ঘটনার প্রতিক্রিয়ায় ট্রাম্প লিখেছেন, রবার্ট ডি নিরো, খুব অল্প বুদ্ধিমত্তার একজন ব্যক্তি, সিনেমায় আসল বক্সারদের হাতে মাথায় অনেক বেশি মার খেয়েছে। আমি গত রাতে তাকে দেখেছি এবং আমি আসলেই বিশ্বাস করি সে হয়ত ‘ঘুষি খেয়ে মাতাল’।

এরপরে ট্রাম্প আরেকটি টুইটে ডি নিরোকে ব্যঙ্গ করে লিখেছেন, জেগে উঠো পাঞ্চি (Punchy)।

বিখ্যাত সিনেমা রেজিং বুল-এ ডি নিরো বক্সার জেক লামোতা’র চরিত্রে অভিনয় করে অস্কার জিতেছিলেন।

রবার্ট ডি নিরো দীর্ঘদিন ধরেই ট্রাম্পের বড় একজন সমালোচক। ২০১৬ সালে নির্বাচনী প্রচারণার সময়, ডি নিরো ট্রাম্পকে বলেছিলেন ‘সম্পূর্ণ পাগল’। ট্রাম্প প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হওয়ার পরে  ডি নিরো ব্রাউন ইউনিভার্সিটির একটা অনুষ্ঠানে বলেছেন ট্রাম্পের অধীনে যুক্তরাষ্ট্র একটা ‘দুঃখজনক, নির্বোধ কমেডি’তে পরিণত হয়েছে। সেই অনুষ্ঠানে ডি নিরো ছাত্রদের ট্রাম্প প্রশাসনের ‘পাগলামি থামানোর জন্য কাজ করতে’ অনুরোধ করেছিলেন ।

ডি নিরোকে নিয়ে ট্রাম্প এই প্রথম টুইটারে বিবাদ শুরু করলেন, এর আগে অন্য অনেক সেলিব্রেটিদেরকে তিনি টুইটারে বিদ্রূপ করেছেন।

স্যাটারডে নাইট লাইভ অনুষ্ঠানে তাকে নকল করার জন্য ট্রাম্প টুইটারে অ্যালেক বাল্ডউইনকে আক্রমণ করেছিলেন, ২০১৭ এর গোল্ডেন গ্লোব অ্যাওয়ার্ড অনুষ্ঠানে ট্রাম্প প্রশাসনের সমালোচনা করার জন্য তিনি মেরিল স্ট্রিপকে আক্রমণ করেছিলেন এবং এনবিএ অল স্টার স্টিফেন কারিকে আক্রমণ করে ট্রাম্প টুইটারে বলেছিলেন, গোল্ডেন স্টেট ওয়ারিয়রদের হোয়াইট হাউজে হয়ত ঢুকতে দেওয়া ঠিক হবে না।