page contents
সমকালীন বিশ্ব, শিল্প-সংস্কৃতি ও লাইফস্টাইল
ব্লগ

ট্যাটুর বানান শোধরাবে কলম্বিয়া

শরীর জুড়ে ট্যাটু এঁকে সকলের নজর কাড়ছেন, খুব ভালো কথা। কিন্তু যা লিখেছেন, বানান যে ভুল!

কিছু তো করার নেই। চামড়া পুড়িয়ে সূঁচ দিয়ে খুচিয়ে করা ট্যাটু।

হ্যাঁ, করার নেই কিছুই। সবাই জানে। মেনেও নিয়েছে। কিন্তু মানতে নারাজ কলম্বিয়ার একটি সরকারি প্রতিষ্ঠান। তারা এক অদ্ভুত গোঁ ধরেছে। ট্যাটুতে যদি বানান ভুল দেখে, তো তারা সেটা শুধরে দেবে। এ জন্যে আবার সূচের নিচে শরীর পাততে হলে, তা-ই সই।

ইন্সতিতিউতো কারো ই কুয়েভারো নামে বোগোতাভিত্তিক এই প্রতিষ্ঠান স্প্যানিশ ভাষার বিশুদ্ধতা নিয়ে একধরনের সূচিবাইতে ভোগে। দেশে কারা কারা শরীর জুড়ে বিব্রতকর বানান ভুল বা ব্যাকরণগত প্রমাদ বয়ে নিয়ে বেড়াচ্ছেন, সেটা শনাক্ত করার অভিযানে নেমেছে এই ইনস্টিটিউট।

এই প্রতিষ্ঠানের এক কর্তাব্যক্তি মারিয়া পলা আলহাতে বলেছেন, অনেকেরই ট্যাটুতে ভুলভাল দেখি আমরা। তবে কোনো কোনো ব্যক্তির ক্ষেত্রে এটা তাদের জীবনের সবচেয়ে জঘন্য ভুল, কেননা সারা জীবন এ ভুল বয়ে বেড়াতে হবে তাদের, প্রতিদিন।

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ক্যাম্পেইন শুরু করেছে এই ইনস্টিটিউট। সকলকে বলা হচ্ছে, কার কার শরীরে কদাকার বানান ভুল দেখা যাচ্ছে, সেটা শনাক্ত করে জানিয়ে দিতে। আগামী সেপ্টেম্বরে ইনস্টিটিউটের পক্ষ থেকে একটি ফেস্টিভালের আয়োজন করা হবে। সেখানে ভাড়া করা হবে পেশাদার ট্যাটু শিল্পী। তারা বানান ভুল-অলাদের বানান শুধরে দেবে।

স্প্যানিশ ভাষায় B আর V এবং S আর C-এর উচ্চারণ একই। এ কারণে এই বর্ণগুলি ব্যবহার করতে গিয়ে প্রায়ই গুলিয়ে ফেলে লোকে। ইন্টারনেটে ভাইরাল হয়ে ওঠা একটি ট্যাটুতে দেখা যাচ্ছে লেখা আছে, “La Vida No es Fasil”। এখানে Fasil-এর সঠিক বানান facil হবে।

আলহাতে বলছেন, “এইসব ভুল শুধরানোর মধ্য দিয়ে আমরা চাই জনগণ ভাষার প্রতি শ্রদ্ধা প্রদর্শন করুক। আর এর মধ্য দিয়ে তরুণ সমাজকে ভাষা বিষয়ে আগ্রহী করে তোলা যাবে বলেও আমাদের বিশ্বাস।”

তবে ট্যাটু আর্টিস্ট তোনো পারিস বলছেন, এভাবে বানান শুধরানো মোটেও সহজ হবে না। একটা অক্ষর খুঁচিয়ে খুঁচিয়ে না হয় আরেকটা অক্ষরের রূপ দেওয়া গেল। কিন্তু কোনো শব্দে যদি একটা অক্ষর বাদ পড়ে গিয়ে থাকে, তো সেই অক্ষর সেখানে ঢোকানো যাবে ীঁভাবে? বা কোনো বাড়তি অক্ষর বাদ দেবেন কী করে?

About Author

সাম্প্রতিক ডেস্ক
সাম্প্রতিক ডেস্ক