page contents
লাইফস্টাইল, সংস্কৃতি ও বিশ্ব
লাইফস্টাইল

তাইওয়ানে হাই হিল আকৃতির চার্চ, নাইজেরিয়ায় আফ্রিকার সবচেয়ে লম্বা খ্রীষ্টমূর্তি

তাইওয়ানের জায়ীই প্রদেশের ইস্ট কোস্টের বুদাই শহরে নীল রঙের কাচ দিয়ে হাই হিল আকৃতির একটি চার্চ তৈরি করা হয়েছে। চার্চটি লম্বায় ৫৫ ফুট, প্রস্থে ৩৬ ফুট এবং ৩২০টি কাচের খণ্ড দিয়ে বানানো হয়েছে।

২০১৬ সালের জানুয়ারির দ্বিতীয় সপ্তাহে চার্চটির নির্মাণ কাজ শেষ হয়েছে। আশা করা হচ্ছে ফেব্রুয়ারির ৮ তারিখে চাইনিজ নববর্ষের আগেই চার্চটি চালু করা হবে।

high-hill-1

সিআইএ ফ্যাক্টবুকের বক্তব্য অনুযায়ী, তাইওয়ানের মূল জনগোষ্ঠীর শুধু ৪.৫ শতাংশ খ্রিস্টান, অর্থাৎ তারা সংখ্যালঘু।

নারীদের জন্য চার্চটির এই গঠনটিই একমাত্র আকর্ষণ নয়। চার্চটিতে ‘চেয়ারস ফর লাভারস’, ‘ম্যাপল লীভস, বিস্কুট ও কেক’ ইত্যাদি সহ আরো ১০০টি বিভিন্ন ফিচার থাকবে নারীদের জন্য।

চার্চটি কোন সম্প্রদায়ের জন্য বানানো হয়েছে তা এখনো স্পষ্ট করে জানা যায় নি। তবে এরই মধ্যে ভিন্ন ধরনের ডিজাইনের কারণে পর্যটকদের আকৃষ্ট করছে চার্চটি এবং পর্যটকদের এটির ছবি তুলতে দেখা গেছে।

সিআইএ ফ্যাক্টবুকের বক্তব্য অনুযায়ী, তাইওয়ানের মূল জনগোষ্ঠীর শুধু ৪.৫ শতাংশ খ্রিস্টান, অর্থাৎ তারা সংখ্যালঘু। তাইওয়ানের ৯৩ শতাংশের বেশি মানুষ বৌদ্ধ ও তাওইস্ট ধর্মের অন্তর্ভুক্ত।

আরেকটি খ্রিস্টান স্থাপত্য ২০১৬ সালের শুরুতেই আন্তর্জাতিক সংবাদে পরিণত হয়েছে। সেটি হলো, নাইজেরিয়ার ইমো প্রদেশের আবাজাহ গ্রামে বিশালাকৃতির যীশু খ্রিস্টের মূর্তি।

২৮ ফুট উঁচু ও ৪০ টন ওজনের এই মূর্তিটির নাম দেওয়া হয়েছে ‘জেসাস দ্য গ্রেটেস্ট’। মার্বেল পাথরের তৈরি যীশু খ্রিস্টের এই মূর্তিটি স্বাগত জানানোর ভঙ্গিতে দুই হাত প্রসারিত করে আছে।

naigeria-jesus

অনুওহা জানিয়েছেন যীশু খ্রিস্টের বিশাল আকৃতির মূর্তি বানানোর এই আইডিয়া প্রায় ২০ বছর আগে তার কাছে স্বপ্নে এসেছিল।

এই মূর্তি তৈরির পেছনে ছিলেন অবিন্না অনুওহা নামের একজন স্থানীয় ব্যবসায়ী। বছরের শুরুতে নাইজেরিয়ার সেইন্ট অ্যালোয়সিয়াস ক্যাথলিক চার্চে মূর্তিটি উন্মোচনের সময় কয়েকশ ক্যাথলিক প্রিস্ট, অসংখ্য ক্যাথলিক ধর্মাবলম্বী ও অবিন্না অনুওহা উপস্থিত ছিলেন। উন্মোচনের সময় বলা হয়েছে মূর্তিটি তৈরি করার উদ্দেশ্য হলো তীর্থযাত্রীদের স্বাগত জানানো।

সেখানকার দায়িত্বরত বিশপ অগাস্টিন তচুকু অকুওমা মূর্তিটির প্রশংসা করেছেন। তিনি বলেছেন খ্রিস্টানদের জন্য বিশ্বাসের বড় একটি প্রতীক হবে এই মূর্তিটি।

তিনি বলেন, এটা তাদেরকে যীশু খ্রিস্টের গুরুত্বের কথা মনে করিয়ে দিবে।

এই মূর্তিটি নির্মাণে কত খরচ হয়েছে তা তারা প্রকাশ করেন নি। তবে অনুওহা জানিয়েছেন যীশু খ্রিস্টের বিশাল আকৃতির মূর্তি বানানোর এই আইডিয়া প্রায় ২০ বছর আগে তার কাছে স্বপ্নে এসেছিল।

About Author

সাম্প্রতিক ডেস্ক
সাম্প্রতিক ডেস্ক