বার্সেলোনা নেইমারকে দলে আনার ব্যাপারে আগ্রহী হলেও নেইমার আগ্রহী কিনা তা এখনো জানা যায়নি।

শুনতে অবাক লাগলেও এটা সত্যি, বার্সেলোনা এখনো নেইমারকে দলে নেওয়ার ব্যাপারে আগ্রহী। ক্লাবের কর্তাব্যক্তিরা নেইমারকে দলে আনার উপায় খুঁজছেন।

নেইমার এর আগে বার্সেলোনায় ছিলেন। কয়েক বছর আগে বার্সেলোনা ছেড়ে ফ্রান্সের ক্লাব প্যারিস সেইন্ট জার্মেইনে গিয়েছেন। বার্সেলোনা নেইমারকে দলে আনার ব্যাপারে আগ্রহী হলেও নেইমার আগ্রহী কিনা তা এখনো জানা যায়নি। নেইমার তার বর্তমান ক্লাব প্যারিস সেইন্ট জার্মেইন ছাড়তে চান। প্যারিস সেইন্ট জার্মেইন ক্লাব এবং তাদের কোচ থমাস তুখে জানিয়েছেন নেইমার পিএসজি ছাড়ার ব্যাপারে আগ্রহী।

নেইমারকে দলে আনার ব্যাপারে বার্সেলোনার প্রধান বাধা হল টাকার পরিমাণ। বার্সেলোনা এই সিজনের শুরুতেই নতুন প্লেয়ারদের জন্যে ২২৫ মিলিয়ন ইউরো খরচ করে ফেলেছে। ৭৫ মিলিয়ন ইউরো দিয়ে ফ্রেঙ্কি দে জন, ২৬ মিলিয়ন ইউরোতে নেটো, ১২০ মিলিয়ন ইউরো দিয়ে আতোয়ান গ্রিজম্যান ও ৪ মিলিয়ন ইউরোতে মার্ক কাকারেলাকে দলে নিয়েছে।

এখন নেইমারকে দলে নিতে চাইলে নেইমারের বাজারমূল্য অনুযায়ী ১৭৫ থেকে ২০০ মিলিয়ন ইউরো তাদের প্রয়োজন। সুতরাং, নেইমারকে দলে নিলে বার্সেলোনা সব মিলিয়ে ৪০০ মিলিয়ন ইউরোর ঘাটতিতে পড়বে।

এই ঘাটতি পূরণের জন্য বার্সেলোনাকে তাদের বর্তমান খেলোয়াড়দের ট্রান্সফার থেকে আরো ৩০০ মিলিয়ন ইউরো আয় করতে হবে। এই তালিকায় প্রথমেই আছে বার্সেলোনার গুরুত্বপূর্ণ খেলোয়াড় ফিলিপ কৌতিনহো। কৌতিনহো বার্সেলোনা ছাড়বেন সেটা দীর্ঘদিন ধরেই শোনা যাচ্ছে, তবে তার গন্তব্য এখনো চূড়ান্ত হয়নি। তবে তিনি পিএসজিতে যেতে পারেন এমন শোনা যাচ্ছে।

আরেকজন খেলোয়াড় বার্সেলোনা ছাড়বেন বলে গুঞ্জন শোনা যাচ্ছে। তিনি হলেন ওসমান দেম্বেলে। বার্সেলোনা ঘোষণা দিয়েছিল যে দেম্বেলেকে তারা এই মৌসুমে ছাড়বে না, তবে বার্সেলোনা যদি নেইমারকে নিয়ে আসে তাহলে হয়ত দেম্বেলেকে বার্সেলোনার ছাড়তে হতে পারে।

নেইমারের জন্য আরো দুজন প্লেয়ার বার্সেলোনা ছাড়ার সম্ভাবনার মধ্যে আছেন। ম্যালকম ও আর্তুর ভিদাল। নেইমার এলে দুজনের একজনকে বার্সেলোনা ছাড়তে হতে পারে।

পরিস্থিতি আরো জটিল হলে স্যামুয়েল উমিতিতি ও ইভান রাকিটিচের মত খেলোয়াড়দেরকেও বার্সেলোনা ছাড়তে হতে পারে। যদিও তারা বার্সেলোনা ছাড়তে আগ্রহী না।

তবে নেইমারকে আনার ব্যাপারে এইবার বার্সেলোনা বেশি সিরিয়াস। সিজন শুরু হওয়ার আগেই নেইমারকে বার্সেলোনায় দেখা যাওয়ার সম্ভাবনা এবার বেশি।