page contents
সমকালীন বিশ্ব, শিল্প-সংস্কৃতি ও লাইফস্টাইল
ব্লগ

প্রতিবাদের মুখে পিঠটান বিজেপি নেতা কৈলাশ বিজয়বর্গীয়ের

তুমুল প্রতিবাদ আর নিন্দার মুখে শাহ রুখ খানকে নিয়ে লেখা বিতর্কিত টুইট প্রত্যাহার করে নিয়েছেন বিজেপির জেনারেল সেক্রেটারি কৈলাশ বিজয়বর্গীয়। মঙ্গলবার এক টুইটে তিনি লিখেছিলেন, “শাহ রুখ খান ভারতে বসবাস করেন বটে, তবে তার হৃদয় পড়ে আছে পাকিস্তানে। তার ছবি কোটি কোটি রুপি আয় করছে, অথচ তিনি এদেশকে অসহিষ্ণু দেখছেন।”

Prakash-Javadekar

“কৈলাশ বিজয়বর্গীয় বিজেপির মুখপাত্র নন, এবং এটা দলেরও অবস্থান নয়।”—প্রকাশ জাভড়েকর

benkaiya-nairu2

“এটা পার্টির দৃষ্টিভঙ্গি নয়। আমরা শাহ রুখকে পছন্দ করি।”—বেঙ্কাইয়া নাইডু

তার এই মন্তব্যের পর থেকেই নিন্দার ঝড় ওঠে। এমনকি তার দলের নেতারাই ছিঃ ছিঃ করতে শুরু করেন। কেন্দ্র সরকারের মন্ত্রী বিজেপির সিনিয়র নেতা প্রকাশ জাভড়েকর বলেন, “আমি সোজাসুজি তার মন্তব্যের নিন্দা জানাই। কৈলাশ বিজয়বর্গীয় বিজেপির মুখপাত্র নন, এবং এটা দলেরও অবস্থান নয়।”

সিনিয়র মন্ত্রী বেঙ্কাইয়া নাইডু বলেন, তিনি কৈলাশের টুইট বার্তাটি দেখেন নি বটে, তবে “এটা পার্টির দৃষ্টিভঙ্গি নয়। আমরা শাহ রুখকে পছন্দ করি।”

এর পর পরই কংগ্রেস গ্রেপ্তার দাবি করে কৈলাশ বিজয়বর্গীয়ের। তারা আরেক বিজেপি নেতা সাংসদ যোগী আদিত্যনাথকেও গ্রেপ্তারের দাবি তোলে, যিনি প্রায় একই সময়ে শাহ রুখ খানকে ২৬ নভেম্বরের হামলার হোতা পাকিস্তানের সন্ত্রাসবাদী হাফিজ সাঈদের সঙ্গে তুলনা করেছেন। তিনি বলেছেন, ইন্ডিয়ার মানুষ শাহ রুখ খানের সিনেমা না দেখলে পথে বসতে হবে এই বলিউড বাদশাহকে।

গোরক্ষপুরের বিজেপি সাংসদ যোগী আদিত্যনাথ

গোরক্ষপুরের বিজেপি সাংসদ যোগী আদিত্যনাথ, নরেন্দ্র মোদীর সঙ্গে

কৈলাশের ‘হৃদয় পাকিস্তানে’ টুইটের পর পরই টুইটারে প্রতিবাদে ফেটে পড়েন শিল্পী ও ফ্যানরা। ‘লিভইন্ডিয়া’ (#liveindia) হ্যাশ ট্যাগে তারা তাদের প্রতিবাদ জানাতে থাকেন।

অবস্থা বেগতিক দেখে বিজেপির জেনারেল সেক্রেটারি আগের টুইট মুছে দিয়ে বুধবার নতুন টুইটে হিন্দিতে লিখেছেন, “কাউকে আঘাত দেওয়া আমার অভিপ্রায় ছিল না। আমি আমার টুইট প্রত্যাহার করছি। ভারত অসহিষ্ণু দেশ হলে শাহ রুখ খান অমিতাভের পর সবচেয়ে জনপ্রিয় অভিনেতা হতে পারতেন না। আমার টুইটকে অনেকে ভুল বুঝেছেন।”

About Author

সাম্প্রতিক ডেস্ক
সাম্প্রতিক ডেস্ক