“সব মুহূর্তই ভালো মুহূর্ত না, আর আপনি যখন দুঃখের কিছু শেয়ার করতে চান, সেই পোস্টে লাইক দেওয়াটা অস্বস্তিকর।”

ফেসবুকের দেড় বিলিয়ন ইউজার খুব দ্রুতই নতুন উপায়ে তাদের অপছন্দ প্রকাশ করতে পারবেন। ফেসবুক এখন ‘ডিসলাইক’ বাটন চালুর কাজ করছে। ক্যালিফোর্নিয়ার মেনলো পার্কে ফেসবুকের হেডকোয়ার্টারে একটা পাবলিক প্রশ্নোত্তর অনুষ্ঠানে ফেসবুকের প্রতিষ্ঠাতা মার্ক জাকারবার্গ ‘ডিসলাইক’ বাটন সংক্রান্ত এই ঘোষণা দিয়েছেন।

৩১ বছর বয়সী এই বিলিয়নিয়ার বলেন, আপনারা অনেক দিন ধরেই ডিসলাইক বাটনের ব্যাপারে জানতে চাচ্ছেন। আপনাদের কথা আমরা শুনেছি,  শেষপর্যন্ত আমরা এই বাটনের ওপর কাজ করছি। আমরা এমন কিছু আনব যা বৃহৎ সম্প্রদায়ের চাহিদা পূর্ণ করবে। এই পরীক্ষার ফলাফলের খুব কাছাকাছি আছি। আমরা কেবল একটা ‘ডিসলাইক’ বাটনই বানাতে চাই নি। আমরা চাই না কোনো পোস্টকে ভোট দিয়ে উপরে তোলা বা নিচে নামানোর মত একটা ফোরামে পরিণত হোক ফেসবুক।

মানুষ অন্যদের পোস্টকে ভোট দিয়ে নিচে নামানোর সুযোগ খুঁজছে না, তারা চায় সহমর্মিতা জানাতে।

সব মুহূর্তই ভালো মুহূর্ত না, আর আপনি যখন দুঃখের কিছু শেয়ার করতে চান, সেই পোস্টে লাইক দেওয়াটা অস্বস্তিকর। হয়তো আপনার বন্ধু ও অন্যেরা প্রকাশ করতে চায় তারা ব্যাপারটি বোঝে এবং তারা আপনার সাথে নিজেদেরকে সম্পর্কিত করতে চায়, ফলে আমি মনে করি একটি পোস্টের ব্যাপারে লোকজনের অনুভূতি দ্রুত প্রকাশ এবং শেয়ার করার জন্য তাদেরকে লাইক ভিন্ন অন্য কোনো অপশন দেওয়াটা গুরুত্বপূর্ণ।

আমাদের একটা আইডিয়া আছে, আমরা মনে করি আমরা খুব দ্রুতই সেটা পরীক্ষা করে দেখতে পারব এবং সেই ফলাফলের ওপর নির্ভর করে আমরা এটাকে আরো ব্যাপকভাবে চালু করার জন্য প্রস্তুত হব।


Townhall Q&A with Mark – The Facebook Founder Mark Zuckerberg

ফেসবুকের লাইক বাটন দিয়ে এর ১.৪৯ বিলিয়ন ব্যবহারকারী অন্যদের পোস্ট অ্যাপ্রুভ বা পছন্দ করতে পারে। এটা এই ওয়েবসাইটের একটা সিগনেচার ফিচারে পরিণত হয়েছে। ফেসবুকের তথ্যানুসারে, প্রতিদিন ৪.৫ বিলিয়ন লাইক দেওয়া হয় ফেসবুকে। পেইজ ডাটা অনুসারে, পপ স্টার শাকিরা ফেসবুকে সবচেয়ে বেশি লাইক পাওয়া ব্যক্তি।

গত বছর ২০১৪ সালের ডিসেম্বরে একটি প্রশ্নোত্তর সেশনে মার্ক জাকারবার্গ জানিয়েছিলেন কোম্পানি এই ধরনের একটি ফিচারের কথা ভাবছে। এরপর থেকেই ‘ডিসলাইক’ বাটনের ব্যাপারে অনেকদিন ধরে গুঞ্জন শোনা যাচ্ছিল।

সে সময় জাকারবার্গ বলেছিলেন, আমরা অনেকদিন ধরেই ভাবছি ঠিক কোন উপায়ে লোকজন আরো ব্যাপকভাবে তাদের ইমোশন প্রকাশ করতে পারবে। মানুষ অনেক অনেক সময় তাদের জীবনের দুঃখের মুহূর্তগুলি ফেসবুকে শেয়ার করে। প্রায়ই মানুষ আমাদের বলে, তারা এইসব ক্ষেত্রে লাইক দিতে স্বাচ্ছন্দ্য বোধ করে না কারণ এইসব ব্যাপারে লাইক যথাযথ সেন্টিমেন্ট না।

কেউ কেউ ডিসলাইক বাটনের কথা বলেছেন। আমি যে জিনিসটি মনে করি, তা হলো মানুষ আরো অনেক সেন্টিমেন্ট প্রকাশ করতে চায়। জাকারবার্গ সে সময় বলেছিলেন, কোম্পানি ‘হাগ’ বাটনের ব্যাপারটি বিবেচনা করছে।

এমনিতে ‘লাইক’ বাটনের বেশ কিছু সমালোচনাও হয়েছে। প্রচুর ‘ভুয়া লাইক’ বা ‘ফেইক লাইক’ কোনো পোস্টের আবেদন বাড়িয়ে দেয়, এই কারণেও এই লাইক বাটনের সমালোচনা হয়েছে প্রচুর।

২০১৩ সালে খবর বেরিয়েছিল, কিছু কোম্পানি ১০ পাউন্ডের বিনিময়ে কয়েকশ লাইক বাড়িয়ে দেয় এবং হ্যাকাররা টাকার বিনিময়েকারো অ্যাকাউন্টে ঢুকে কোনো পণ্যে লাইক দিয়ে দেয়।

চ্যানেল ফোরের নিউজ ইনভেস্টিগেশনে বলা হয়, ফেসবুক বলেছে ভুয়া লাইকওয়ালা পেইজ তারা রিমুভ করে ফেলবে।

গত মাসে ফেসবুক জানায়, একদিনে ১ বিলিয়নেরও বেশি মানুষ এখন ফেসবুক ব্যবহার করছে। প্রথমবারের মত কোম্পানিটি এই মাইলস্টোন স্পর্শ করে। ২০০৪ সালে হার্ভার্ডে পড়ার সময় জাকারবার্গ ফেসবুক প্রতিষ্ঠা করেন। এই মাইলফলকের ব্যাপারে জাকারবার্গ বলেন, তিনি গর্বিত যে পৃথিবীর প্রতি সাতজনের একজন ২৪ আগস্ট, ২০১৫ তারিখে ফেসবুকে লগ ইন করেছিল।