ব্র্যাড পিট ও শাহ রুখ খান নেটফ্লিক্সের পক্ষ থেকে মুম্বাইতে একটি অনুষ্ঠানে একসাথে উপস্থিত হয়েছিলেন।

নেটফ্লিক্স প্রযোজিত ব্র্যাড পিটের নতুন ছবি ‘ওয়ার মেশিন’ এর প্রচারণা চালাতে ইন্ডিয়ায় এসেছিলেন ব্র্যাড পিট। গত মার্চে (২০১৭) শাহ রুখ খানের প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান রেড চিলিস এন্টারটেইনমেন্টের সাথে নেটফ্লিক্সের ব্যবসায়িক চুক্তি হয়েছে।

দুই তারকাই সিনেমা নিয়ে কথা বলেছেন, তবে আলোচনার মূল বিষয় ছিল সিনেমার ভবিষ্যৎ বাস্তবতা কীভাবে বদলে যাচ্ছে।

ব্র্যাড পিটের ‘ওয়ার মেশিন’ এখন পর্যন্ত নেটফ্লিক্স প্রযোজিত সবচেয়ে বড় ছবি। তবে ‘ওয়ার মেশিন’ বড় পর্দায় বা সিনেমা হলে মুক্তি দেওয়া হবে না। ২৬ মে নেটফ্লিক্স স্ট্রিমিং-এ মুক্তি পাবে ‘ওয়ার মেশিন’।

ওয়ার মেশিন ছবিতে ব্র্যাড
ওয়ার মেশিন (২০১৭) ছবিতে ব্র্যাড পিট

ব্র্যাড পিট বলেছেন, হলিউডের স্টুডিও সিস্টেমের বিজনেস মডেলের জন্য তারা আর এ ধরনের ছবি বানাতে পারে না। প্রিন্টিং এবং বিজ্ঞাপনের ব্যয় অনেক। দর্শকের জায়গা থেকে দেখলে, অনেক ছবি তৈরি হচ্ছে। ফিল্মমেকিং এর নতুন একটা ধরন জেগে উঠছে।

ব্র্যাড পিটের কথায় তার ক্যারিয়ার ও জীবনের বর্তমান অবস্থাও উঠে এসেছে। তিনি বলেছেন, আমার বয়স যত বাড়ছে, অভিনয় আমার কাছে বড় একটা কমিটমেন্ট হয়ে যাচ্ছে। অনেক কঠিন সময় গেছে। পরিবার থেকে দূরে থাকা আসলে বড় একটা ব্যাপার। আমি আরো বেশি করে প্রোডাকশন সাইডে মনোযোগ দিয়েছি। ফিল্মমেকারদের জন্য দরজা খুলে যাচ্ছে, এটা আমার জন্য আনন্দের।

শাহ রুখ খান ব্র্যাড পিটের ছবি প্রথম দেখার স্মৃতির কথা জানান। ব্র্যাড পিটকে তিনি বলেন, ‘টুয়েলভ মাংকিস’-এ আপনাকে আমার অসাধারণ লেগেছিল। সেই ছবিতে আপনি দুর্দান্ত কাজ করেছিলেন, তখন আমি একজন ব্র্যাড পিট ভক্ত হয়ে যাই।

এর উত্তরে ব্র্যাড পিট বলেন, ‘টুয়েলভ মাংকিস’-এর জন্য আমি কয়েক সপ্তাহ নিজেকে ঘরে বন্দি করে রেখেছিলাম।

শাহ রুখ খান সিনেমার ভবিষ্যৎ নিয়ে যতটাই উৎফুল্ল, বলিউড নিয়ে ততটাই শঙ্কিত। শাহ রুখ খানের কথায় সেটাই বোঝা গেল। তিনি বলেন, গত কয়েক বছরে আমাদের সিনেমা দেখতে যাওয়া দর্শকদের আচরণ বদলে গেছে। আমরা এখন গ্লোবাল মার্কেটে চলে গেছি, আমাদের তারকারা আন্তর্জাতিক ছবিতে অভিনয় করছে, এবং একই সাথে আমাদের হলিউডের সিনেমার ক্ষুধা শুধু বেড়েছে।

শাহ রুখ খান আরো বলেন, আমরা যদি মার্কেটিং, ভিজ্যুয়াল ইফেক্ট, চিত্রনাট্য ও প্রফেশনালিজমের দিক থেকে এই নতুন পরিবেশে খাপ খেতে না পারি, তাহলে আমরা দখল হয়ে যাব। আমরা যদি হলিউডের কাছ থেকে না শিখি তাহলে দখল হয়ে যাওয়ার অনেক বড় ভয় আছে। আমাদেরকে খাপ খাওয়াতে হবে। বিশেষ করে চিত্রনাট্যের ক্ষেত্রে। আমরা যদি তা না করি, তাহলে আগামি ২০ বছর পরে আমাদের বড় একটা সমস্যা দেখা দিবে। আমাদের খুব সুন্দর সুন্দর গল্প আছে, কিন্তু আমরা যথেষ্ট ভালোভাবে গল্পগুলি বলছি না। আমরা আমাদের গল্পগুলিকে যেনতেন ভাবে ব্যবহার করছি। আমাদেরকে গল্প বলার ধরন বদলাতে হবে।

কান চলচ্চিত্র উৎসবে নেটফ্লিক্সের ছবি সিনেমা হলে মুক্তি না দেওয়ার কারণে ইতোমধ্যেই বড় বিতর্ক তৈরি হয়েছে। নেটফ্লিক্স প্রযোজিত ‘ওকজা’ সিনেমার পরিচালক কান ফিল্ম ফেস্টিভ্যালের সবচেয়ে বড় পুরষ্কার পাম ডি’অর এর জন্য প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। অথচ ‘ওকজা’ ছবিটি প্রদর্শনের সময় হলে মুক্তি না দেওয়ার কারণে দর্শকরা চিৎকার করে তিরস্কার করছিল।

বিখ্যাত স্প্যানিশ পরিচালক আল মোদোভার ও উইলিয়াম স্মিথ এই বিষয়ে বিতর্কে জড়িয়ে পড়েন। কান ফিল্ম ফেস্টিভ্যালের প্রধান জুরি আল মোদোভার প্রতিজ্ঞা করেন যে ছবি সিনেমা হলে মুক্তি পাবে না সেটাকে কখনোই প্রথম পুরষ্কার দিবেন না। আল মোদোভার বলেন, বড় পর্দার দর্শকদেরকে সম্মোহিত করার ক্ষমতার ব্যাপারে আমি লড়াই করতেই থাকব।

অন্য দিকে নেটফ্লিক্স প্রযোজিত ‘ব্রাইট’ ছবির অভিনেতা উইল স্মিথ বলেছেন সিনেমা হলে যাওয়ার উপর নেটফ্লিক্সের কোনো প্রভাব নেই। ওয়ার্ল্ড সিনেমা সম্পর্কে দর্শকদের ধারণা বড় করছে নেটফ্লিক্স।

Facebook Comments

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here