রবার্ট ডি নিরোকে একই সাথে বৃদ্ধ এবং তরুণ অবস্থায় দেখানোর জন্য কম্পিউটার জেনারেটেড ইম্যাজেরি (সিজিআই) ব্যবহার করা হচ্ছে।

মার্টিন স্করসেজি’র নতুন সিনেমা দ্য আইরিশম্যান এর কাহিনি আমেরিকান শ্রমিক ইউনিয়ন নেতা জিমি হফা ও তার খুনি ফ্র্যাংক শিরানকে নিয়ে। মুভিতে ফ্র্যাংক শিরানের চরিত্রে অভিনয় করেছেন রবার্ট ডি নিরো আর আল পাচিনো আছেন জিমি হফার ভূমিকায়

সিনেমার গল্প চলবে কয়েক দশক জুড়ে। তাই রবার্ট ডি নিরোকে একই সাথে বৃদ্ধ এবং তরুণ অবস্থায় দেখানোর জন্য কম্পিউটার জেনারেটেড ইম্যাজেরি (সিজিআই) ব্যবহার করা হচ্ছে। আর সেই সিজিআই এর কাজ নিখুঁত করার জন্যই পোস্ট-প্রোডাকশনে সময় লাগছে বেশি।

এটুয়েন্টিফোর পডক্যাস্টের সাথে এক সাক্ষাৎকারে স্করসেজি জানান, অভিনেতাদের চেহারার বলিরেখাগুলি দূর করার জন্য যে সিজিআই ব্যবহার করা হয়েছে, তাতে এখনো তিনি পুরাপুরিভাবে সন্তুষ্ট হতে পারেননি।

স্করসেজি বলেন, “আমি আসলে চিন্তিত যে, তাদের বয়স্ক চেহারা দেখতে দেখতে তো আমরা অনেক বেশি অভ্যস্ত হয়ে পড়েছি।… এখনো তাই কয়েকটা শটে তাদের চোখের পাশের কোঁচকানো জায়গায় আরেকটু কাজ করতে হবে আমাদের।”

জর্জ লুকাসের বিখ্যাত ভিজ্যুয়াল ইফেক্টস কোম্পানি এই প্রযুক্তির দায়িত্বে আছে। এর আগে তারা ২০০৮ সালে দ্য কিউরিয়াস কেস অফ বেনজামিন বাটন সিনেমায় একই তরিকায় অভিনেতা ব্র্যাড পিটের বয়স প্রয়োজনমতো কমিয়ে-বাড়িয়ে নিয়েছিল।

তাছাড়া অনলাইন প্রযোজনা সংস্থা নেটফ্লিক্সের সাথে সম্ভাব্য ১২৫ মিলিয়ন ডলার বাজেটের চুক্তি হলেও স্করসেজি সেই বাজেট বাড়িয়ে এর মধ্যেই ১৪০ মিলিয়নে নিয়ে গেছেন। সিজিআইয়ের কাজ শেষ না হওয়ায় ২০১৯ সালের কান ফিল্ম ফেস্টিভ্যালেও দ্য আইরিশম্যান প্রদর্শিত হয়নি। তবে ২০১৯ এর একেবারে শেষদিকে হলেও ছবিটি মুক্তি দেওয়া হবে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

স্করসেজির পুরানো দুই সহকর্মী হার্ভি কাইটেল (আই কল ফার্স্ট, মীন স্ট্রিটস, ট্যাক্সি ড্রাইভার) এবং জো পেশি (রেজিং বুল, গুডফেলাস, ক্যাসিনো) অনেকদিন পর তার কোনো ছবিতে অভিনয় করছেন। হলিউডে তাই ছবিটিকে কিংবদন্তীদের পুনর্মিলনী হিসাবে দেখা হচ্ছে।