page contents
সমকালীন বিশ্ব, শিল্প-সংস্কৃতি ও লাইফস্টাইল
ব্লগ

খড়ের সাগরে ডুবে যাচ্ছে অস্ট্রেলিয়ার শহর ওয়াংগারাটা

খড়ের সাগরে ডুবে যাচ্ছে অস্ট্রেলিয়ার উত্তর-পূর্ব ভিক্টোরিয়ান টাউন ওয়াংগারাটা। নির্দিষ্ট করে বললে, চুলের মত পাতলা ‘প্যানিক’ ঘাসে ছেয়ে গেছে শহরটি।

রাস্তাঘাট, পিছনের উঠান, ড্রাইভওয়ে সব জায়গায় এই ঘাস বাড়ির ছাদের সমান স্তূপ তৈরি করেছে।

শহরের বাসিন্দাদের বাড়ি থেকে বের হওয়ার জন্য প্রতিদিন প্রচুর খড় সরিয়ে বের হতে হয়। শহরের প্রান্তে, ভিস্তা ড্রাইভে, ইভা স্ট্রিটে এবং কুরাওং ড্রাইভে অবস্থা সবচেয়ে খারাপ।

ওয়াংগারাটা কাউন্সিলের মুখপাত্র অ্যান্ড্রু চাক বলেছেন, এটা অনেক হাল্কা, কিন্তু এটা যে কোনো কিছুর সাথে আঠার মত লেগে থাকে।

panic-grass-2

প্যাম টুইচেটের উঠানে সাধারণত টেবিল এবং চেয়ার থাকে।

চেরি লেনগ্রাড তার বাড়ি থেকে এই ঘাস পরিষ্কার করেছেন আট ঘণ্টায়। তার পরের দিনই তার বাড়ির পিছনের উঠানে আবার ঘাস গজিয়ে উঠেছে।

জেসন পার্না তার প্রতিবেশীর দুরবস্থার কথা জানিয়ে বলেছেন, আপনি যখন দেখবেন আপনার সামনে অনেক কয়েক ঘণ্টার কাজ পড়ে আছে তখন তা বেশ নিরানন্দের।

শহরের বাসিন্দারা ধারণা করছেন, এই ঘাস বা খড়গুলি কাছের একটি চারণভূমি থেকে আসছে, সেখানে এই ঘাস মাত্রাতিরিক্ত বড় হয়ে যাওয়ার কারণে এটা ঘটছে। এবং তাদের ধারণা কোনো একজন ফার্মারের অবহেলার কারণেই এটা ঘটেছে।

তবে এই ‘প্যানিক’ ঘাসের জন্য ৫ মাইল দূরত্ব অতিক্রম করা খুব বিশেষ কোনো ঘটনা না।

শহরের একজন বাসিন্দা প্যাম টুইচেট বলেছেন, এটা শারীরিকভাবেও সমস্যাজনক, মানসিকভাবেও সমস্যাজনক।

২০১৫-এর গ্রীষ্মে শহরের রোয়ান স্ট্রিটের একটি আন্ডারপাস এই ঘাসে ছেয়ে গিয়েছিল।

শহরের বাসিন্দারা জানেন গ্রামাঞ্চলে বাস করলে এরকম ঘটনা খুবই স্বাভাবিক, তবে এতটা খারাপ অবস্থা তারা এর আগে দেখেন নি। এই গ্রীষ্মকাল বেশি শুষ্ক হওয়ার কারণে অবস্থা গতানুগতিকের চেয়ে অনেক বেশি খারাপ হয়েছে।

সমস্যা সমাধানের জন্য শহরের কাউন্সিল ১৮ ফেব্রুয়ারি, ২০১৬ সকালে একটি মিটিং ডাকে এবং খড় পরিষ্কার করার জন্য ভারি যন্ত্রপাতিসহ কর্মী পাঠায়। শহরের কাউন্সিল ফায়ার অথরিটির সাথেও কথা বলছে এ ব্যাপারে।

কাউন্সিলের মুখপাত্র অ্যান্ড্রু চাক বলেছেন, কাউন্সিলের দৃষ্টিভঙ্গি থেকে, আমরা এখন খুব বাজে একটা অবস্থায় আছি। আমরা আশা করছি যে কোনোভাবে আমরা এটা পরিষ্কার করতে পারব। কীভাবে তা করা যায় আমরা এখন তা বের করার চেষ্টা করছি।

 

About Author

সাম্প্রতিক ডেস্ক
সাম্প্রতিক ডেস্ক