page contents
লাইফস্টাইল, সংস্কৃতি ও বিশ্ব
আন্তর্জাতিক

২০১৫ এর সেরা ১৫ রোমান্টিক মুভি

রোমান্টিক ছবিতে সাধারণত সুন্দর একটি প্রেমের গল্প দেখা যায়। কোনো কোনো ছবির কাহিনী এমন যে সেটা সত্যিকারের ভালোবাসা কেমন হয় তার একটি সংজ্ঞা দাঁড় করায়। রোমান্টিক ছবিতে প্রায়ই দেখা যায় প্রেমিক অথবা প্রেমিকা বিভিন্ন বাধার মুখোমুখি হয়। যেমন, অর্থনৈতিক সমস্যা, শারীরিক অসুস্থতা, বিভিন্নভাবে বঞ্চিত হওয়া, সাইকোলজিক্যাল সমস্যা অথবা প্রেমের ক্ষেত্রে পরিবার বাধা হয়ে দাঁড়িয়েছে। গভীর রোমান্টিক সম্পর্কের বিভিন্ন টানাপোড়েন নিয়েই মূলত রোমান্টিক ছবির কাহিনী হয়ে থাকে। নিচে গেল বছরের সেরা ১৫ রোমান্টিক ছবির তালিকা। সূত্র: imdb.com.

১. দ্য ড্যানিশ গার্ল (The Danish Girl)

১৯২৬ সালে কোপেনহেগেনে ড্যানিশ আর্টিস্ট গেরডা ভাগনার তার স্বামী এইনার ভাগনারের ছবি আঁকে। গেরডা এইনারকে একজন নারী হিসাবে দেখায় তার পেইন্টিংয়ে। পেইন্টিংটি যখন জনপ্রিয় হয় এইনার নারীর মত রূপ ধারণ করে নিজেকে একজন নারী ‘লিলি এলবে’ হিসাবে পরিচয় দিতে থাকে। ফেমিনিজমের প্রতি আগ্রহের কারণে ও গেরডার সমর্থন নিয়ে এইনার—বা এলবে—নিজেকে পুরুষ থেকে নারীতে রূপান্তর করার অপারেশন করে। এই সিদ্ধান্তের প্রভাব পড়ে তাদের বিয়ের ওপর। গেরডা বুঝতে পারে সে যাকে বিয়ে করেছিল, তার স্বামী আর সেই লোক নেই।

কাহিনীর একপর্যায়ে এইনারের ছোটবেলার বন্ধু আর্ট ডিলার হ্যান্স আক্সজিলকে দেখা যায় এবং এই দম্পতির সাথে তার একটি ত্রিভুজ প্রেমের জটিলতা তৈরি হয়।

২. দিলওয়ালে (Dilwale)

বুলগারিয়াতে ইন্ডিয়ান ডন রনধীর বকশীর (ভিনোদ খান্না) সাথে তার এক সময়ের বন্ধু ও বর্তমান শত্রু মালিকের (কবির বেদী) সংঘর্ষ চলছে। রাজ (শাহ রুখ খান) রনধীর বকশীর পালকপুত্র। দুই পরিবারের এই যুদ্ধে রনধীরের হাতের তুরুপের তাস রাজ। রাজের সাথে মালিকের পরিবারের মেয়ের (কাজল) প্রেম হয়।

১৫ বছর সেপারেশনের পরে শাহ রুখ ও কাজলের দেখা হয়। তারা দুইজন দুই পরিবারের মধ্যকার সংঘর্ষ সমাধানের চেষ্টা করে। ১৫ বছর দীর্ঘ সময়েও তাদের একের প্রতি অন্যের ভালোবাসা কমে না।

৩. ক্যারল (Carol)

প্যাট্রিসিয়া হাইস্মিথের উপন্যাস প্রাইস অব সল্ট অবলম্বনে তৈরি হয়েছে ক্যারল ছবিটি। ১৯৫০ এর দশকে দুই নারীর মধ্যকার অপ্রত্যাশিত প্রেম নিয়ে ছবির কাহিনী।

থেরেস বেলিভেট নামের এক তরুণী ম্যানহাটন ডিপার্টমেন্ট স্টোরে ক্লার্কের কাজ করে। তার সাথে বিবাহিত নারী ক্যারলের (কেট ব্ল্যানচেট) এর দেখা হলে সে ক্যারলের প্রেমে পড়ে যায়। তাদের সম্পর্ক গভীর হতে থাকে। ক্যারল যখন তার বিবাহ থেকে সরে আসার সিদ্ধান্ত নেয় তখন ক্যারলের স্বামী (কাইল চ্যাডলার) তার মাতৃত্বের যোগ্যতা নিয়ে প্রশ্ন করতে শুরু করে এবং থেরেসের সাথে ক্যারলের প্রেম ও ক্যারলের বন্ধু অ্যাবির (সারাহ পলসন) সাথে ক্যারলের ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক প্রকাশিত হয়ে পড়ে।

৪. বাজিরাও মাস্তানি (Bajirao Mastani)

বাজিরাও ৪১টি গুরুত্বপূর্ণ যুদ্ সহ আরো অনেক যুদ্ধে লড়াই করেছে। কোনো যুদ্ধেই পরাজিত না হওয়ার ব্যাপারে খ্যাতি আছে তার। সে তার ভাইকে বলে, রাত ঘুমানোর জন্য নয়। ঈশ্বর রাত সৃষ্টি করেছে তোমার শত্রুর ভূখণ্ডে আক্রমণ করার জন্য। শত্রুর কামানের গোলা ও তরবারির আঘাত থেকে বাঁচতে রাতকে আড়াল হিসেবে ব্যবহার করতে হয়। মাস্তানির প্রেমে পড়ে যায় বাজিরাও।

৫. ব্রুকলিন (Brooklyn)

সুনিশ্চিত ভবিষ্যৎ ও চাকরি পাওয়ার আশায় এইলিস লেসি তার বোন রোজের প্ল্যান অনুসরণ করে আয়ারল্যান্ড ছেড়ে যুক্তরাষ্ট্রে যায়। ব্রুকলিনে অনেক আইরিশ অভিবাসী থাকে বলে তার এক সহযাত্রী তাকে ব্রুকলিনে থাকার পরামর্শ দেয়। এইলিস ব্রুকলিনে থাকতে শুরু করে ও ক্যাথলিক প্রিস্ট ফাদার ফ্লাডের সাথে তার ঘনিষ্ঠতা হয়।

সে একটি ডিপার্টমেন্ট স্টোরে চাকরি পায় এবং টনি নামের এক ইতালিয়ানের প্রেমে পড়ে। বাড়ি থেকে খবর পেয়ে এইলিস আয়ারল্যান্ডে ফিরে আসে এবং তনির সাথে তার বিচ্ছেদ শুরু হয়।

৬. দ্য লবস্টার (The Lobster)

দ্য লবস্টারের কাহিনী নিকট ভবিষ্যতের। সেখানে সিঙ্গেল লোকদের গ্রেপ্তার করে একটি হোটেলে পাঠিয়ে দেওয়া হয়। সেখানে ৪৫ দিনের মধ্যে তাদেরকে নিজের জন্য পারফেক্ট সঙ্গী খুঁজে বের করতে হয়। এটা করতে ব্যর্থ হলে তাদেরকে এক ধরনের পশুতে পরিণত করে বনে পাঠিয়ে দেয়া হয়।

৭. ট্রেইনরেক (Trainwreck)

অ্যামি টাউনসেডের সাথে তার বাবা গর্ডন টাউনসেডের ভালোবাসা/ঘৃণার সম্পর্ক থাকলেও অ্যামি তাকে দেখে বিশ্বাস করেছে যে মনোগ্যামি বা একগামিতা বাস্তবিক কিছু নয়। অ্যামি ছোট থাকতেই তার বাবা-মায়ের ডিভোর্স হয়ে গিয়েছিল। অ্যামি খুব ড্রিংক করে এবং স্বেচ্ছাচারী যৌনজীবন কাটায়। তার বর্তমান বয়ফ্রেন্ড স্টিভেন বিশ্বাস করে তারা খুবই বিশেষ একটি কাপল, অথচ সে জানে না অ্যামি অন্য লোকের সাথে শোয়। অ্যামি একটি সেনসেশনালিস্টিক ম্যাগাজিনে চাকরি করে। ম্যাগাজিনের জন্য অ্যামির পরবর্তী গল্প এক স্পোর্টস ডাক্তার ড. আরন কনারস।

অ্যামিকে অবাক করে দিয়ে আরন তার সাথে ডেট করতে চায় এবং তা পরবর্তীতে যৌন সম্পর্কে গিয়ে দাঁড়ায়। অ্যামি যখন ড. আরনের সেক্সুয়াল হিস্টোরি জানতে পারে এবং যখন দেখে আরনের যৌন সম্পর্কের পরিমাণ তার তুলনায় সম্পূর্ণ বিপরীত, সে খুবই অবাক হয়।

৮. সিন্ডেরেলা (Cinderella)

এলা (সিন্ডেরেলা) নামের নরম হৃদয়ের একটি মেয়ের কাহিনী। তার নিষ্ঠুর সৎ মা ও সৎ বোন তার জীবন অতিষ্ঠ করে ফেলে। এলার জীবনে একজন রাজকুমার আসে এবং তাকে সুন্দর একটি জীবনে নিয়ে যায়। এলা তার গডমাদারের সাহায্যও পায়।

৯. অ্যানোমালিসা (Anomalisa)

মাইকেল স্টোন কাস্টমার সার্ভিসের ওপর লেখালেখি করে। অন্য লোকজনের সাথে সে ভালোভাবে ইন্টার‍্যাক্ট করতে পারে না। তার সংবেদনশীলতা ও জীবনের উত্তেজনা এতই কম যে তার জীবন খুবই একঘেয়ে পুনরাবৃত্তিমূলক প্রক্রিয়ায় চলতে থাকে। কিন্তু একটি ব্যবসায়িক সফরে তার সাথে একজন অপরিচিতের দেখা হয়। সেই অপরিচিত ব্যক্তি সাধারণ নয়, বিশেষ। স্টোনের জীবনের প্রতি নেতিবাচক প্রক্রিয়া বদলে যায় এবং সেই ব্যক্তি স্টোনের একঘেয়ে জীবনকে বদলে দেয়।

১০. ক্রিমসন পার্ক (Crimson Peak)

একটি ফ্যামিলি ট্র্যাজেডি থেকে পালিয়ে বাঁচতে চায় এডিথ কাশিং। সে থমাস শার্পকে বিয়ে করে। থমাস শার্প তার জন্য রহস্যময় অপরিচিত একজন মানুষ। থমাস এবং তার বোন লুসিলে শার্পের সাথে বসবাস করতে শুরু করে এডিথ। হঠাৎ সে আবিষ্কার করে থমাস শার্পের বাড়িভর্তি ভূত।

১১. ফিফটি শেডস অব গ্রে (Fifty Shades of Grey)

সাহিত্যের ছাত্রী আনাসতাসিয়া স্টিলে তার রুমমেট কেট কাভানাগের সহায়তায় ধনী ব্যক্তি ক্রসচিয়ান গ্রে’র ইন্টারভিউ নিতে যায়। গ্রেকে তার মনে হয় অসাধারণ সুন্দর এবং ব্রিলিয়ান্ট একজন মানুষ। সহজ সরল আনা বুঝতে পারে গ্রে তাকে চায়। সে নিজেও গ্রে’র প্রতি আকৃষ্ট হয়। কিন্তু ক্রিশ্চিয়ান গ্রে আনাকে চায় তার নিজের মত করে।

আনা আবিষ্কার করে গ্রে’র রুচি স্বাভাবিক নয়। প্রচণ্ড ধনী ব্যক্তি ক্রিশ্চিয়ান গ্রে সবকিছুকে নিজের মত করে নিয়ন্ত্রণ করতে চায়।

১২. দ্য লংয়েস্ট রাইড (The Longest Ride)

নিকোলাস স্পার্কের বেস্ট সেলিং উপন্যাস অবলম্বনে এই ছবির কাহিনী। বুল রাইডিংয়ে সাবেক চ্যাম্পিয়ন, বর্তমানে আবার ক্যারিয়ারে ফিরে আসার চেষ্টা করছে সেই লিউকের সাথে নিউ ইয়র্ক সিটির আর্ট ওয়ার্ল্ডে স্বপ্নের চাকরি পাওয়া কলেজ ছাত্রী সোফিয়ার প্রেম দ্য লংয়েস্ট রাইডের কাহিনীর কেন্দ্র। দুজনের জীবনের আলাদা আলাদা পথের কারণে তাদের ভালোবাসা পরীক্ষার মুখোমুখি হয়। সোফিয়া এবং লিউকের সাথে ভাগ্যক্রমে ইরা’র দেখা হয়। ইরা’র স্ত্রীর সাথে তার দীর্ঘদিন আগের ভালোবাসার স্মৃতি লিউক এবং সোফিয়াকে গভীরভাবে অনুপ্রাণিত করে।

দুই প্রজন্মের দুইটি ভালোবাসার কাহিনীর মাধ্যমে ভালোবাসা কত গভীর হতে পারে তা দেখানো হয়েছে এই ছবিটিতে।

১৩. লাভ (Love)

প্যারিসে বসবাস করে আমেরিকান নাগরিক মারফি। অস্থির প্রকৃতির ইলেক্ট্রার সাথে সে গভীর আবেগ ও যৌনতার সম্পর্কে জড়িয়ে পড়ে। তারা তাদের সুন্দরী প্রতিবেশীকে তাদের বিছানায় আমন্ত্রণ জানায়, কিন্তু এর পরিণতি তারা আগে থেকে আন্দাজ করতে পারে না।

১৪. 45 ইয়ারস (45 Years)

নিজেদের ৪৫তম বিবাহবার্ষিকীর সপ্তাহে এক দম্পতি একটি অপ্রত্যাশিত চিঠি পায়। এই চিঠিতে রয়েছে তাদের পুরো জীবন বদলে দেয়ার মত খবর।

১৫. আলোহা (Aloha)

একজন আলোচিত মিলিটারি কন্ট্রাক্টরের ক্যারিয়ারের একটি গুরুত্বপূর্ণ ঘটনা, হনলুলুর হাওয়াইতে যুক্তরাষ্ট্রের স্পেস প্রোগ্রাম। সেই প্রোগ্রামের সাইটে অনেক দিন পরে সে ফিরে আসে। তার জীবনের দীর্ঘদিন আগের ভালোবাসার সাথে সে পুনরায় নিজের সংযোগ ঘটাতে থাকে, তখনই তার সামনে বিপত্তি হয়ে আসে এয়ার ফোর্স ওয়াচডগ।

About Author

সাম্প্রতিক ডেস্ক
সাম্প্রতিক ডেস্ক