page contents
সমকালীন বিশ্ব, শিল্প-সংস্কৃতি ও লাইফস্টাইল
ব্লগ

অ্যান্টিবায়োটিকের প্রতিরোধ ক্ষমতা কমে আসছে—রক্ষা পেতে কাঁচা মধুর ব্যাকটেরিয়া

কয়েক যুগ ধরে মানুষ অ্যান্টিবায়োটিকের সুফল পেয়ে আসছে। তবে এখন ডাক্তাররা আশঙ্কা করছেন, অ্যান্টিবায়োটিক ব্যবহারের এই সুদিন খুব দ্রুতই শেষ হয়ে আসছে।

অ্যান্টিবায়োটিককে নিষ্ক্রিয় করে রাখার মত অর্গানিজমের উদ্ভবের ফলে এর কার্যকারীতা সীমিত হয়ে আসছে। যার কারণে বিজ্ঞানীরা অ্যান্টিবায়োটিকের বিকল্প আবিষ্কারের জন্য গবেষণা করে যাচ্ছেন।

সুইডেনের লুন্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষকরা জানিয়েছেন, তারা কাঁচা মধুর ভেতরে একধরনের ব্যাকটেরিয়ার সন্ধান পেয়েছেন। এই ব্যাকটেরিয়া অন্য ব্যাকটেরিয়ার সংক্রমণ প্রতিহত করতে পারে।

মৌমাছির পাকস্থলীতে ১৩টি গোত্রের এসিড ব্যাকটেরিয়ার অস্তিত্ব লুন্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষক দল আবিষ্কার করেছেন। মৌমাছির তৈরি মধুতেও এই ব্যাকটেরিয়াগুলি থাকে। যেগুলি একটা বড় স্কেলে অ্যান্টিমাইক্রোবায়াল পদার্থ তৈরি করে এবং স্বাভাবিক পরিবেশে অন্য অনেক ব্যাকটেরিয়াকে নিষ্ক্রিয় রাখতে পারে।

গবেষকরা দেখেছেন, এই অ্যান্টিমাইক্রোবায়াল পদার্থে যেসব উপাদান আছে তা মিথিসিলিন (অ্যান্টিবায়োটিক) প্রতিরোধী কিছু ক্ষতিকর ব্যাকটেরিয়া যেমন, স্টাফিলোকাস আউরাস (MRSA), সিডোমানাস আরুগিনোসা ইত্যাদি ব্যাকটেরিয়াকে ধ্বংস করতে সক্ষম।

এই মাইক্রো অর্গানিজমগুলি ক্রমে নিজেদের মধ্যে অ্যান্টিবায়োটিক সহনীয়তা তৈরি করে, যা এই ব্যাকটেরিয়াজনিত অসুখের চিকিৎসাকে কঠিন করে তোলে।

এটা এখনো মানুষের উপর প্রয়োগ করা হয় নি, যে কোনো নতুন ধরনের ব্যাকটেরিয়া নিয়ে এমন পরীক্ষার অনুমতি পাওয়া কঠিন। এই সংক্রান্ত আন্তর্জাতিক আইন বেশ কড়া। তবে ১০ টি ঘোড়ার ক্ষতের উপর এটা প্রয়োগ করা হয়েছিল। যেই ক্ষতগুলি প্রচলিত অ্যান্টিবায়োটিক প্রয়োগে না সারলেও ল্যাকটিক এসিডে থাকা ব্যাকটেরিয়া প্রয়োগে ১০ টি ঘোড়ার ক্ষতই সারিয়ে তুলেছে।

গবেষকরা আরো লক্ষ করেছেন, কাঁচা মধুতে থাকা এই ব্যাকটেরিয়া দিয়ে মানুষ আগে অনেক ভাবে উপকৃত হয়েছে। কিন্তু এখনকার পরিশোধিত মধুতে এই ব্যাকটেরিয়া সঠিক মাত্রায় থাকে না।

এই ব্যাকটেরিয়ার তৈরি উপাদানগুলি আলাদা করা সম্ভব এবং কৃত্রিম ভাবে তৈরি করাও সম্ভব, আবার সরাসরি ব্যাকটেরিয়াগুলিও চিকিৎসায় ব্যবহার করা যেতে পারে। বড় পরিসরের অ্যান্টিমাইক্রোবায়াল এজেন্ট তৈরি করতে পারে বলে অন্য ব্যাকটেরিয়ার পক্ষে তার সাথে মানিয়ে নেয়া কঠিন।

গবেষকদের পরবর্তী লক্ষ্য, ল্যাকটিক এসিডে থাকা এই ব্যাকটেরিয়াগুলিকে মানব শরীরে সৃষ্ট ক্ষত সারিয়ে তুলতে ব্যবহার করা।

About Author

সাম্প্রতিক ডেস্ক
সাম্প্রতিক ডেস্ক