page contents
সমকালীন বিশ্ব, শিল্প-সংস্কৃতি ও লাইফস্টাইল
ব্লগ

চেয়ার ছাড়াই চেয়ার—যেখানে খুশি বসার জন্যে এক্সোস্কেলেটন!

হাসপাতালের নার্স, কারখানার শ্রমিক, চুল কাটার বা খাবারের দোকানে অনেকক্ষণ দাঁড়িয়ে থেকে কাজ করা লোকেরা জানেন এভাবে দাঁড়িয়ে কাজ করাটা কী রকম কষ্টদায়ক হতে পারে। এতে পেশী অবশ হয়ে আসে। কাজে মনযোগ নষ্ট হয়। অনেক সময় এই অস্বস্তি কাটিয়ে ওঠার জন্যে অনেকে স্বাভাবিকের চেয়ে ভিন্ন ভঙ্গিতে বসেন।

 

বসার সময় ভুল হওয়াটাই স্বাভাবিক, তাতে শরীরে ইনজুরিও হতে পারে। এর ফলে ভবিষ্যতে কাজ করার শারীরিক সামর্থ্য এবং প্রজনন ক্ষমতাও হারাতে হতে পারে অনেককে।

এই সমস্যা সমাধানে সুইজারল্যান্ডের স্টার্ট আপ কোম্পানি নুনি ‘চেয়ারলেস চেয়ার’ তৈরি করেছে। এই যন্ত্রটি পায়ের পেছনে পরতে হয় আর এটা পরেই স্বাভাবিক ভাবে হাঁটাচলা করা যাবে। শুধু পা ভাজ করেই এর ব্যবহারকারী যেকোন জায়গায় যেকোন সময়ে বসে বিশ্রাম নিতে পারবে।

নুনি’র সিইও এবং কো-ফাউন্ডার কিইথ গুনুরা জানান, টিনএইজ বয়সে একটা প্রোডাকশান লাইনে কাজের সময় তিনি এর ধারণা পেয়েছিলেন।

Exoskeleton2এই যন্ত্রের অ্যালুমিনিয়াম আর কার্বন ফাইবারের দুটি ফ্রেমের প্রতিটির ওজন ১ কেজি করে। যন্ত্রটি দুই পায়ের সাথে স্ট্র্যাপ দিয়ে আর নিচে জুতার হিলের সাথে লাগানো থাকে।মানুষের উচ্চতা অনুযায়ী এর সাইজ ঠিক করার জন্যে এতে ড্যাম্পার লাগানো আছে। সুবিধাজনক পজিশনে বসে ব্যবহারকারী একটি বোতাম টিপলেই ৬ ভোল্টের ব্যাটারি ২৪ ঘণ্টার জন্য যন্ত্রটিকে চালু রাখে।

বিএমডব্লিউ’র প্রোডাকশন লাইন অক্টোবর ২০১৪ থেকে এই ‘চেয়ারলেস চেয়ার’ এর ব্যবহার প্রথম বারের মত শুরু করবে। তাতে বোঝা যাবে আসলেই এর ব্যবহার পেশীর ক্লান্তি দূর করে কাজে মনোযোগ আনতে পারবে কিনা।

জার্মানির আরেক কোম্পানি অডি’র কর্মীরা ২০১৪ বছরের শেষের দিকে এই যন্ত্র ব্যবহার করে দেখার সুযোগ পাবেন। এক্সোস্কেলেটনের এখনকার মডেলটা একটু বড়সরো। যন্ত্র ও তার ব্যবহারকারীর নিরাপত্তার জন্যেই এখন এরকম সাইজ রাখা হয়েছে। তবে ভবিষ্যতের মডেলগুলি আরো হালকা-পাতলা হবে আর স্বাভাবিক পোশাকের নিচেই, মানে চোখে না পড়ার মত করেই এ যন্ত্র তখন পরা যাবে।

কর্মস্থলের বাইরেও এই যন্ত্র অনেক কাজে আসবে। জনবহুল কোনো জায়গায় যেখানে বসার জায়গা পাওয়া যায় না বা এয়ারপোর্টের মতো কোনো স্থানে বা কোথাও হয়ত ফোন বা ল্যাপটপ চার্জ দেয়ার জন্য একটু দাঁড়িয়ে থাকতে হবে তেমন সময় কাজে আসবে এই যন্ত্র।

About Author

সাম্প্রতিক ডেস্ক
সাম্প্রতিক ডেস্ক