page contents
সমকালীন বিশ্ব, শিল্প-সংস্কৃতি ও লাইফস্টাইল
ব্লগ

নিঃশ্বাসে দুর্গন্ধ তাড়াতে যে ৮টি খাবার খেতে পারেন

bad breath5

পেঁয়াজ এবং রসুন যুক্ত খাবার খাওয়ার পর নিঃশ্বাস দুর্গন্ধ হয়ে যাওয়া নিয়ে আপনি কি বিব্রতকর অবস্থার মুখোমুখি হচ্ছেন? তবে এই অস্বস্তিকর নিঃশ্বাস থেকে মুক্তি পাওয়ার খাদ্যও রয়েছে। নিচের আটটি খাবার আপনাকে নিঃশ্বাসের দুর্গন্ধ এড়াতে সাহায্য করবে।

১) আপেল
আপেলের ক্ষেত্রে “প্রতিদিন একটি আপেল আপনাকে চিকিৎসকদের কাছে থেকে দূরে রাখবে” যেমন সত্যি, আপেল নিঃশ্বাসে দুর্গন্ধ হওয়া বন্ধ করে সেটিও সত্যি। আপেল রসুনে থাকা এনজাইমের গন্ধ প্রতিরোধ করে। আপেলে থাকা পলিফেনল নামক রাসায়নিক পদার্থ রসুনের দুর্গন্ধ নষ্ট করে দেয়।

২) চা
গবেষণায় দেখা গেছে গ্রীন টি বা ব্ল্যাক টি (যেটিকে আমরা র-চা বলি) নিঃশ্বাসে দুর্গন্ধ কমায়। বিশেষ করে গ্রীন টিতে থাকা অ্যান্টিঅক্সিডেন্টের কারণে গ্রীন টি এক্ষেত্রে বেশি কার্যকর। গ্রীন টিতে বিদ্যমান এই অ্যান্টিঅক্সিডেন্টের নাম পলিফেনল, এটি যেসব ব্যাকটেরিয়া নিঃশ্বাসে দুর্গন্ধ তৈরি করে সেগুলিকে ধ্বংস করে ফেলে। এটি দুর্গন্ধযুক্ত সালফার উপাদানকেও কমায়।

৩) পানি
পানি হজম প্রক্রিয়ায় সহায়তা করে। পানি সব খাদ্যকে হজম প্রক্রিয়ার অন্তর্গত করে ফেলে, ফলে, আপনার মুখে বাড়তি কোনো খাবারের অস্তিত্ব থাকে না এবং মুখে বা নিঃশ্বাসে দুর্গন্ধ হয় না।

bad breath2

৪) দই
গবেষণায় দেখা গেছে প্রতিদিন ৬ আউন্স পরিমাণ দই খেলে তা আপনার মুখে দুর্গন্ধ সৃষ্টিকারী ব্যাকটেরিয়া কমায়। এর কারণে দই-এ স্ট্রেপটোকোকাস থার্মোফিলাস ও ল্যাকটোব্যাসিলাস বুলগারিসাস-এর মত ব্যাকটেরিয়া বা অণুজীব থাকে। সেগুলি আপনার মুখে দুর্গন্ধ সৃষ্টিকারী ব্যাকটেরিয়াকে ধ্বংস করে।

তবে এক্ষেত্রে আপনার চিনি ছাড়া দই খাওয়া উচিৎ। কারণ চিনিযুক্ত দই শরীরে এবং বিশেষ করে আপনার মুখে ব্যাকটেরিয়া বেড়ে উঠতে সাহায্য করে।

৫) পার্সলে (এক ধরনের সবুজ শাক)
এর শক্তিশালী ফ্লেভারের কারণে পার্সলেকে প্রাকৃতিক সুগন্ধিকারক বিবেচনা করা হয়। আর এটি সবুজ রঙের হওয়ায় এতে ক্লোরোফিল থাকে। ক্লোরোফিল একটি অ্যান্টিব্যাকটেরিয়াল উপাদান। এটি মুখে দুর্গন্ধ সৃষ্টিকারী সালফার উপাদানকে নষ্ট করে ফেলে।

৬) কাজুবাদাম এবং অন্যান্য বাদাম
বাদামে প্রচুর পরিমাণ আঁশ থাকায় এগুলি অনেকটা টুথব্রাশের মত কাজ করে। তাছাড়া এটি আপনার দাঁতে আক্রমণকারী ব্যাকটেরিয়া যে দুর্গন্ধ তৈরি করে তা প্রতিরোধ করে।

৭) চেরি
মুখে ব্যাকটেরিয়ার সংক্রমণ ঘটার কারণে, মুখে দুর্গন্ধযুক্ত একধরনের মিথাইল গ্যাস তৈরি হয়। চেরি ফল এই গ্যাসকে নষ্ট করে এবং খাবারের শেষবিন্দুটি পর্যন্ত হজমে সাহায্য করে। ফলে মুখে দুর্গন্ধ তৈরি হয় না।

৮) দুধ
গবেষণায় দেখা গেছে পানি মিশ্রণ না করা দুধে যে ফ্যাট এবং পানি উপাদান রয়েছে সেগুলি রসুনযুক্ত খাবার থেকে নিঃশ্বাসে যে দুর্গন্ধ হয় সেগুলি দূর করতে কার্যকর ভূমিকা রাখে।
ইনস্টটিউট অব ফুড টেকনোলজির গবেষণায় বলা হয়েছে রসুনযুক্ত খাবার থেকে মুখে যে কটু গন্ধ তৈরি হয় তা দূর করতে দুধ পান একটি কার্যকর উপায়।

About Author

সাম্প্রতিক ডেস্ক
সাম্প্রতিক ডেস্ক