page contents
সমকালীন বিশ্ব, শিল্প-সংস্কৃতি ও লাইফস্টাইল
ব্লগ

মাইক্রোসফটের লিংকডইন ক্রয় — ঘটনা ও সম্ভাবনা

microsoft-linedin-12

ইতিহাসের সবচেয়ে বড় প্রযুক্তি বেচাকেনার ঘটনা হলো মাইক্রোসফটের লিংকডইন কিনে নেওয়া। তবে এটা সবচেয়ে সফল কিনা তা এখনো বলা যাচ্ছে না।

লিংকডইনের বস জেফ ওয়েইনার ১৩ জুন, ২০১৬ তে একটা খোলা চিঠিতে বলেছেন, এমন একটা দুনিয়ার কথা ভাবেন যেখানে আমরা আর অ্যাপল, গুগল, মাইক্রোসফট, আমাজন ও ফেসবুকের মত বড় বড় টেক কোম্পানির দিকে চেয়ে নাই… কারণ আমরা নিজেরাই সেগুলার একটা।

সত্য কথা হলো, আসলে কল্পনা করারও তেমন দরকার নাই। মাইক্রোসফট কিছুদিন আগে ঘোষণা দিয়েছে, ২৬.২ বিলিয়ন ডলারে সোশ্যাল নেটওয়ার্ক লিংকডইন কিনে নেবে। ইতিহাসে এটা হতে যাচ্ছে তৃতীয়-বৃহত্তম কেনাবেচার ঘটনা।  মি. ওয়েইনার ও মাইক্রোসফটের প্রধান সত্য নাদেলা, দুজনেই মনে করছেন এই ডিল দুনিয়ার সব ব্যবসা প্রতিষ্ঠান আর কর্মীদের উৎপাদন বা কাজের ধরন বদলে দেবে। এইসব আশাবাদ যদিও কথার কথা।

সত্য নারায়ণ নাদেলা (জন্ম. হায়দ্রাবাদ, ইনডিয়া ১৯৬৭)

সত্য নারায়ণ নাদেলা (জন্ম. হায়দ্রাবাদ, ইনডিয়া ১৯৬৭)

মাইক্রোসফট চড়া দামে এমন একটা ফার্ম কিনছে যেটা এরই মধ্যে অনেক রকম ঝামেলার মধ্য দিয়ে গেছে। তবে লিংকডইনের গুরুত্ব অস্বীকার করার কোনো উপায় নাই। লিংকডইন সবচেয়ে বড় প্রফেশনাল সোশ্যাল নেটওয়ার্ক। লিংকডইনের রেজিস্টার্ড ইউজারের সংখ্যা ৪৩০ মিলিয়ন এবং প্রতি মাসে লিংকডইনের ভিজিটর ১০০ মিলিয়ন। কিছু অ্যানালিস্ট প্রশ্ন তুলেছেন আর কত বেশি হতে পারে তাদের ইউজার আর ভিজিটরের সংখ্যা।

লিংকডইনের বেশিরভাগ টাকা আসে কর্পোরেট নিয়োগদাতাদের কাছে সাবস্ক্রিপশন বিক্রির মাধ্যমে। সেইসব নিয়োগদাতারা এক্সিকিউটিভদের লিংকডইন ডাটাবেজে দক্ষ ও প্রতিশ্রুতিশীল কর্মী খোঁজে। যে রকম আশা করা হয়েছিল, লিংকডইনের সে রকম মুনাফা আসে নি। লিংকডইন দেখেছে যে নতুন বিজনেস প্রজেক্ট শুরু করা এবং বর্তমান প্রজেক্টকে আরো উন্নত করা অনেক বেশি খরচের ব্যাপার।

ক্যালিফোর্নিয়ায় লিংকডইনের হেডকোয়ার্টার।

ক্যালিফোর্নিয়ায় লিংকডইনের হেডকোয়ার্টার।

লিংকডইনের উন্নতির ধীর গতি আসলে ২০১৬ এর ফেব্রুয়ারিতে সামনে চলে আসে। ফেব্রুয়ারিতে এক দিনের মধ্যেই লিংকডইনের শেয়ারের দাম ৪০ শতাংশ কমে যায়, এর মার্কেট ভ্যালু কমে যায় ১১ বিলিয়ন ডলার। তখন লিংকডইন জানায় ২০১৬ তে তাদের প্রাথমিক আয় তাদের প্রত্যাশার চেয়ে কম ছিল। তখন তারা আরো জানায় ৩ বিলিয়ন ডলার আয় করলেও ২০০১৫ তে তারা ১৬৫ মিলিয়ন ডলার লস দিয়েছে। স্টক-ভিত্তিক ক্ষতিপূরণের কারণে আসলে এই লস হয়েছে।

২০১১ তে লিংকডইন পাবলিকলি বিজনেস শুরু করার পরে ২০১৬ এর ফেব্রুয়ারিতেই সবচেয়ে বড় দরপতন ঘটে। এর শেয়ারের দাম এখনো সবটা উঠে আসে নাই।

এতসব আশংকা থাকা সত্ত্বেও মাইক্রোসফট লিংকডইনের শেয়ার প্রাইসের ওপর ৫০ শতাংশ প্রিমিয়াম দিচ্ছে, এর কারণ ফার্মটি নিজেদের অধীনে নিয়ে নেওয়া। এমআইটির স্কুল অব ম্যানেজমেন্টের অধ্যাপক মাইকেল কুসুমানোর ধারণা এক বছরের মধ্যে লিংকডইনের দাম আরো কমে যেত, কিন্তু মি. নাদেলা হয়ত আর দেরি করতে চান নাই।

কম্পিউটারের সফটওয়্যার প্রস্তুতকারক হিসেবে বিশ্বের সবচেয়ে বড় কোম্পানি মাইক্রোসফট এবং অনেক অনেক দিন ধরে তাদের কোনো প্রতিদ্বন্দ্বী নাই। যেহেতু এখন মোবাইল ডিভাইসগুলিতে কম্পিউটারের কাজ সম্ভব, এই কারণে এবং ক্লাউডের কারণে মাইক্রোসফটকে গুগল এবং আমাজনের মত কোম্পানিগুলির সাথে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করতে হচ্ছে।

জেফরি "জেফ" উইনার (জন্ম. নিউ ইয়র্ক, ইউ এস ১৯৭০)

জেফরি “জেফ” উইনার (জন্ম. নিউ ইয়র্ক, ইউ এস ১৯৭০)

মাইক্রোসফটের আগের বস স্টিভ বালমার এইসব এরিয়ায় বিনিয়োগ করতে তেমন সক্রিয় ছিলেন না, কিন্তু মাইক্রোসফটকে সেই আগের প্রতিদ্বন্দ্বিতাহীন অবস্থানে নিয়ে যাওয়ার ব্যাপারে সত্য নাদেলার বড় পরিকল্পনা রয়েছে। এর ফলে মাইক্রোসফটের প্রধান পণ্য, অপারেটিং সিস্টেম উইন্ডোজের ওপর মাইক্রোসফটের গুরুত্ব দান কমে আসবে। মাইক্রোসফট এখন ক্লাউড কম্পিউটিং-এ বেশি গুরুত্ব দিবে এবং মেশিন লার্নিং ও আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্সে অগ্রগতির ব্যাপারে সামনে চলে আসবে।

মাইক্রোসফটের এই বিশাল পরিকল্পনার অংশ হলো লিংকডইন কিনে নেওয়া। একদল মারাত্মক দক্ষ ডাটা-সায়েন্টিস্ট আছে লিংকডইনের। অনেক বেশি ডিজিটাল ইনফরমেশনের মধ্য থেকে প্যাটার্ন খুঁজে বের করার অ্যালগরিদম ডিজাইন করে তারা। মাইক্রোসফটের জন্য লিংকডইন বিভিন্ন ভাবে কাজের জিনিস হবে। লিংকডইন তাদের ব্যবহারকারীদের ডিটেইলড তথ্য রাখে; তাদের চাকরির ইতিহাস, শিক্ষা, তাদের পরিচিত কারা—এইসব তথ্য লিংকডইনের কাছে থাকে। গ্রাহকদের সাথে ম্যানেজিং রিলেশনশিপ গড়তে এবং সেলসফোর্সের সাথে প্রতিদ্বন্দ্বীতা করতে এই ডাটাগুলি মাইক্রোসফটের জন্য সহায়ক হবে। ২০১৫ তে মাইক্রোসফট অনেকবার সেলসফোর্সকে কিনে নেওয়ার চেষ্টা করেছে, কিন্তু পারে নি।

"সেলসফোর্সের বর্তমান বাজারমূল্য ৫৫ বিলিয়ন ডলার। সেই তুলনায় লিংকডইন সস্তা বিকল্প হয়েছে।"

“সেলসফোর্সের বর্তমান বাজারমূল্য ৫৫ বিলিয়ন ডলার। সেই তুলনায় লিংকডইন সস্তা বিকল্প হয়েছে।”

দামের ক্ষেত্রে দুই কোম্পানির বনিবনা হয় নাই। সেলসফোর্সের বর্তমান বাজারমূল্য ৫৫ বিলিয়ন ডলার। সেই তুলনায় লিংকডইন সস্তা বিকল্প হয়েছে। মাইক্রোসফট অফিস-এর সাথে লিংকডইনকে সমন্বিত করা হবে। মাইক্রোসফটের বিজনেস অ্যাপ্লিকেশন ওয়ার্ড, এক্সেল ও আউটলুক, ই-মেইল সিস্টেম এগুলির সাথে লিংকডইনকে যুক্ত করা হবে। এই ব্যপারটি হয়ত জনপ্রিয় হবে। আর লিংকডইনের সাথে এইসব এক্সট্রা ফিচারের কারণে বিভিন্ন কোম্পানি হয়ত মাইক্রোসফটের কাছে থেকে ক্লাউড সার্ভিস কিনতে উৎসাহিত হবে।

এত কিছুর পরেও, এই ডিলের যৌক্তিকতা নিয়ে কিছু প্রশ্ন থাকেই। মি. নাদেলা বলেছেন লিংকডইনের সাথে মাইক্রোসফট মিলে কর্মচারীদের ব্যক্তিগত ডিটেইলস অনলাইনে ম্যানেজ করার একটা প্ল্যাটফর্মে পরিণত হবে। তিনি এটাও বলেছেন যে, কোনো কোনো তথ্য ব্যবহারকারীদের জন্য দরকারি হতে পারে, কারো কাজের জন্য প্রয়োজনীয় নিউজ আর্টিকেল অথবা কাউকে কাজে বা প্রজেক্টে সাহায্য করতে পারে এমন কোনো ফ্রেন্ড অব ফ্রেন্ডের রেকমেন্ডেশন ইত্যাদি অনুমান করার জন্য ভালো কাজ করবে মাইক্রোসফট। ফলে, মি. নাদেলার কথা থেকে বোঝা যাচ্ছে, অফিস-এ ইনফরমেশন শেয়ারিং এর জন্য সবাই লিংকডইনের নিউজফিডের ওপর ফোকাস করবে।

 

যে দাম দিয়ে কেনা হয়েছে, এখন কাজে লাগবে কিনা

মাইক্রোসফটের প্ল্যানে তিনটা সমস্যা আছে। প্রথমটা অর্থনৈতিক। লিংকডইনের প্রতিটা ইউজারের জন্য মাইক্রোসফট প্রতি মাসে ২৬০ ডলারের মত ব্যয় করছে।

শেয়ারহোল্ডারদের খুশি রাখার জন্য লিংকডইনের প্ল্যাটফর্মে আরো বেশি ইউজার আরো দ্রুত যোগ করার প্রয়োজন হবে অথবা তাদের ডাটা থেকে কীভাবে আরো বেশি টাকা আয় করতে পারে সে ব্যাপারে স্পষ্ট হতে হবে।

"বড় বড় ডিলের ক্ষেত্রে মাইক্রোসফটের ইতিহাস ভালো না। ২০১১ সালে ৮.৫ বিলিয়ন ডলারে স্কাইপে কেনার পরে তেমন কোনো সফলতা পায় নি এক্ষেত্রে।"

“বড় বড় ডিলের ক্ষেত্রে মাইক্রোসফটের ইতিহাস ভালো না। ২০১১ সালে ৮.৫ বিলিয়ন ডলারে স্কাইপে কেনার পরে তেমন কোনো সফলতা পায় নি এক্ষেত্রে।”

"২০০৭ সালে এ-কুয়ান্টিভ নামের একটি অনলাইন বিজ্ঞাপনি সংস্থা কিনে ৬.৩ বিলিয়ন ডলার নষ্ট করেছে মাইক্রোসফট।"

“২০০৭ সালে এ-কুয়ান্টিভ নামের একটি অনলাইন বিজ্ঞাপনি সংস্থা কিনে ৬.৩ বিলিয়ন ডলার নষ্ট করেছে মাইক্রোসফট।”

দ্বিতীয় সমস্যাটি অপারেশনাল। বড় বড় ডিলের ক্ষেত্রে মাইক্রোসফটের ইতিহাস ভালো না। ২০১১ সালে ৮.৫ বিলিয়ন ডলারে স্কাইপে কেনার পরে তেমন কোনো সফলতা পায় নি এক্ষেত্রে। ২০০৭ সালে এ-কুয়ান্টিভ নামের একটি অনলাইন বিজ্ঞাপনি সংস্থা কিনে ৬.৩ বিলিয়ন ডলার নষ্ট করেছে মাইক্রোসফট। আবার ২০১৪ তে ৭.৬ বিলিয়ন ডলারে নকিয়ার হ্যান্ডসেট বিজনেস কিনে নেওয়ার পরেও একই ঘটনা ঘটেছে।

যদিও এ সব কিছুই হয়েছে মি. নাদেলা দায়িত্ব গ্রহণ করার আগে। ইউবিএস নামের একটা ব্যাংকের একজন অ্যানালিস্ট ব্রেন্ট থিল বলেছেন ইতিহাস কোনো আশার বাণী শোনাচ্ছে না। মি. নাদেলা লিংকডইনকে একটা স্বাধীন কোম্পানি হিসেবেই রাখতে চান। এর কারণ সম্ভবত তিনি এর আগের বড় ডিলগুলির ব্যর্থতা দেখেছেন।

তৃতীয় সমস্যাটা আচরণগত। লিংকডইনকে মানুষজনের প্রফেশনাল জীবনের বিভিন্ন সংবাদ ও অন্যান্য ডিটেইল খোঁজার জায়গাতে পরিণত করতে চান সত্য নাদেলা, কিন্তু প্রায় কোনো প্রতিষ্ঠানই তাদের কর্মীদেরকে সোশ্যাল মিডিয়ায় সময় কাটাতে দিতে চায় না। অনেক কোম্পানির প্রধান ব্যক্তিরা লিংকডইনকে ক্ষতিকর মনে করেন কারণ একজনের কর্মী আরেকজনকে দেওয়ার মাধ্যমে টাকা আয় করে লিংকডইন। তারা হয়ত ভবিষ্যতেও চাইবে না লিংকডইন তাদের কোম্পানিতে কোনোভাবে প্রবেশ করুক।

ইতোমধ্যেই অনেক বড় কোম্পানি লিংকডইনকে তাদের প্রতিষ্ঠানের নেটওয়ার্কে ব্লক করে রেখেছে। মাইক্রোসফটও যদি ব্যবহারকারীদের ডাটা অন্য কোথাও দেয়া শুরু করে তবে হয়ত ব্যবহারকারীরা অস্বস্তি বোধ করবে, অনেকেই হয়ত ব্যবহার করাই বন্ধ করে দেবে।

মি. নাদেলা বলেছেন ইউজারদের পছন্দ সম্পর্কে তারা যেটা জানেন, ঠিক সেভাবেই ইউজারদেরদের সাথে তারা আচরণ করবেন।

বিভিন্ন কারণে এই ডিলটিকে ওয়েলকাম জানানো হয়েছে। বিভিন্ন টেক-কোম্পানি কেনা-বেচার একটি ট্রেন্ড বা ঝোঁক হয়ত অদূর ভবিষ্যতে চালু হবে, তার সংকেত হয়ত এটা।  মাইক্রোসফটের লিংকডইন কিনে নেওয়ার পরের দিন থেকেই বিনিয়োগকারীরা দেখতে শুরু করেছেন অন্য কোন কোম্পানিগুলির ওপর মি. নাদেলা ও তার সঙ্গীরা চোখ রাখছে। এই ঘটনায় আশাবাদীরা টুইটারের শেয়ারের দাম বাড়িয়ে দিয়েছে। টুইটারের ব্যবসায়িক অগ্রগতি ইতোমধ্যেই প্রশ্নবিদ্ধ অবস্থায় আছে, তারা আশা করছে কোনো ক্রেতা হয়ত এগিয়ে আসতে পারেন। কিন্তু সব টেক কোম্পানিই তো আর মি. নাদেলার কাছে বিক্রি হওয়ার মত ভাগ্যবান না!

সূত্র: দ্য ইকোনমিস্ট

About Author

সাম্প্রতিক ডেস্ক
সাম্প্রতিক ডেস্ক