page contents
সমকালীন বিশ্ব, শিল্প-সংস্কৃতি ও লাইফস্টাইল
ব্লগ

মেটাস্টেসিস কার্সিনোমা

nirjhar-11

বড় অদ্ভুত টাইটেল। এই শব্দ দুটির সাথে খুব কম মানু্ষের পরিচয়। শব্দ দুটির সাথে কারো পরিচয় হওয়াটাও সুখকর নয়। তার পরেও কিছু মানুষের জীবনে শব্দ দুটি অনেক ভয়ঙ্কর ভাবে আসে। চরম বাস্তবতায়। এই শব্দ দুটির সাথে ক্যান্সার ডাক্তাররা ভালো পরিচিত। এবং এই ক্যান্সার যেসব পরিবারে হয় তারা পরিচিত (ফার্স্ট হ্যান্ড এক্সপেরিয়েন্স হিসেবে)। দুঃখজনক ভাবে পরের দলে। আমার পরিবারে এই অসুখ হয়েছিল। অতীত কালে লিখতে হলো। যার হয়েছিল তিনি আমার বাবা। নজরুল ইসলাম (চেয়ারম্যান)।

প্রথম দিকে আমার ধারণা ছিল যে ক্যান্সার বড় অসুখ নয়। কেমো থেরাপি, রেডিও থেরাপি দিয়ে একে নিয়ন্ত্রণে রাখা যায়। খুবই সরল একটা ধারণা। বাবার যখন ক্যান্সার ধরা পরল সেদিনটার কথা আমার মনে আছে। বড় ভয়ঙ্কর অনুভূতি।

nirjharlogo

ভারত এবং নেপালের মাঝে বেড়াতে গেছি। জায়গাটার নাম সান্দাকফু। ইনাম, জুঁই, ইনাম কন্যা, মনোয়ার ভাই এবং আমি। আমরা একটু বেশি অ্যাডভেন্চার করতে গিয়ে লালমনিরহাট দিয়ে রওনা হই। তাই ফেরার সময় একই ইমিগ্রেশন। কুড়িগ্রামের কাছে তাই সুযোগটা হাতছাড়া করি নি। সবাই সহ বাড়িতে চলে যাই।

বাড়িতে গিয়ে দেখি আমার বাবা পিঠের ব্যাথায় ছট ফট করছেন। তাই ঢাকা ফেরার সময় এক রকম জোর করে তাকে নিয়ে আসি। আসতে চাচ্ছিলেন না। অনেক কাজ। চিরজীবন কাজ করেই গেলেন। ঢাকায় এসে হাড়ের ডাক্তার দেখালাম। ওনার যাবতীয় এক্সরে এবং সিটি স্ক্যান শেষে বললেন বায়োপসি করাতে হবে। করানো হলো। সেই স্যাম্পল দুই জায়গায় দেয়া হলো। এক জায়গায় আসল ব্লাড ক্যান্সার এবং অন্য জায়গায় মেটাস্টেসিস কার্সিনোমা।

নজরুল ইসলাম

নজরুল ইসলাম। ছবি. কার্লোস কাজালিস।

ব্লাড ক্যান্সার দেখেই মাথা খারাপের মতো অবস্থা। মরাকান্না সবার। আবার বাবার সামনে সবাই হাসিমুখ। যেন কিছুই হয় নাই। সব ঠিকঠাক। আর আমাদের বালিশগুলো প্রত্যেক রাতে ভেজে। দিনের বেলা শুকায়। আমরা ব্লাড ক্যান্সারকে মেনে নিয়ে ডাক্তারের সাথে কথা বলা শুরু করলাম।

ডাক্তার জানালেন ব্লাড ক্যান্সারের ভালো চিকিৎসা আছে। ভয়ে মরে যাওয়ার কিছু নেই। আমার বাসায় হুট করে শান্তি। অনেক দিন পর ফিরে এসে ভাত খেলাম। তারপর ঘুম। অনেক দিনের ঘুম। আরামের ঘুম। বাসায় মোটামুটি আনন্দঘন পরিবেশ। নিশ্চিত মৃত্যু থেকে রেহাই।

যেহেতু দুই জায়গায় দুই রিপোর্ট তাই নিশ্চিত হওয়ার জন্য আরো অনেকগুলো পরীক্ষা করা হলো। এবং অবশেষে জানা গেল যে তার ব্লাড ক্যান্সার নেই। তবে পরেরটা নিশ্চিত। তখন আবার নতুন করে পরীক্ষা যে ক্যান্সারটির উৎপত্তি কোথায়। পরে জানা গেল ফুসফুসে। আমাদের আবার কান্নার রোল। জোয়ার-ভাটার মতো অবস্থা।

আমি এবং মা গেছি রিপোর্ট আনতে মেডিনোভায়। পেট সিটি স্ক্যানের (PET CT Scan)। রিপোর্ট হাতে নিয়ে দেখি প্রাইমারি টিউমার ফুসফুসে। কাকতালীয়ভাবে বাবা সেই সময়েই ফোন করলেন। এবং আমার মাকে তার জন্য সিগারেট আনতে বললেন। আমার মা রেগে আগুন। ফুসফুসে ক্যান্সার জেনেছেন মাত্র কয়েক মিনিট আগে। তার উপরে সিগারেটের আবদার।

humayun-ahmed-32

হুমায়ূন আহমেদ

বাসায় এসেই ডাক্তারের সাথে পরামর্শ। শুরু হলো কেমো এবং রেডিও থেরাপি। তারপরও মনে আশা। অনেক বেঁচে থাকবেন বাবা। এর পিছনে বড় শক্ত একটা যুক্তি ছিল। আমার নানি দীর্ঘকাল ক্যান্সারে আক্রান্ত হয়ে বেঁচে ছিলেন। সেই ভরসায় আমাদের নতুন চিন্তা শুরু হলো।

দিনে দিনে বাবার শরীর খারাপ হওয়া শুরু করল। মাথার চুল হাওয়া। মুখে কালি। বড় কষ্টের সেসব দিন। এর মধ্যে হুমায়ূন আহমেদ মারা গেলেন। আমার স্মার্ট বাবা খুবই আপসেট হয়ে গেলেন। তার যুক্তি—“এত বড় মানুষ। এত ভালো জায়গায় চিকিৎসা করেও বাঁচলেন না। আমি কোথাকার কে?”

আমি এবং মা আবার ঘটা করে ডাক্তারের কাছে গেলাম। আমার সকল আশাকে গুড়িয়ে দিয়ে ডাক্তার একটা বাজে কথা শোনালেন। এই ক্যান্সার মেটাসটেসিস। এটা হলে গড়ে ১ থেকে দেড় বছর মানুষ বাঁচে।

আমি অনেক কষ্টে নিজের অজ্ঞান হওয়া ঠেকালাম সেদিন। বাসায় এসে পুরো ভেঙেপড়া একজন মানুষ। মাথার উপরের শক্ত ছাদ ভেঙে যাবে? আবার আমাকে শক্তও হতে হবে। নজরুল চেয়ারম্যানের একমাত্র পুত্র আমি। অনেক দায়িত্ব। অনেক কঠিন দায়িত্ব।

দেশের ডাক্তারদের কথায় আর ভরসা না পেয়ে একরকম রাতারাতি বাবাকে নিয়ে চলে গেলাম কলকাতা। টাটা মেডিকেল সেন্টারে। আবার একই চিকিৎসা। তারপর একদিন তিনি বৃদ্ধ হলেন, বনস্পতির ছায়া দিলেন সারা জীবন।

এই লেখা লিখতে পারছিলাম না। গত ২০ দিন থেকে চেষ্টা করেও শেষ হয় না। একটা লাইন লিখি। মনিটর দেখি না। ঝাপসা হয়ে যায়। লেখা শেষ হয় না। বড় কষ্ট। প্রতিটা দিনের কথা মনে পড়ে। বাবার মুখটা মনে পড়ে। আমার সবচেয়ে বড় সাপোর্টার ছিলেন। আমার মুগ্ধ ভক্ত। আমার সব কিছুতেই যার অনেক গর্ব ছিল। সেই বাবাকে নিয়ে আমার লেখা থমকে থাকে। তারপরও লিখলাম। আবার লিখব।

আমি লিখব আমার রাত জেগে থেকে বাইরের সব বড় বড় মেডিকেল রিসার্চ সেন্টারের সাথে যোগাযোগ করা। টেস্ট মেডিসিনের চেষ্টা করা। এবং ঘণ্টার পর ঘণ্টা ক্যান্সার নিয়ে পড়াশুনা করার কথা।

লিখলাম কারণ কিছুদিন থেকে দেখছি হুমায়ূন আহমেদকে নিয়ে আবারো উত্তেজিত ফেসবুক। ওনাকে নাকি মদ খাইয়ে মেরে ফেলা হয়েছে। হায় রে গাধার দল! হুমায়ূন আহমেদ এবং আমার বাবা একই রোগে মারা যান। যার আয়ুষ্কাল গড়ে ১ থেকে দেড় বছর। অসুখটার নাম মেটাসটেসিস কার্সিনোমা। সবচেয়ে বাজে ধরনের ক্যান্সারের একটি। কারো আগ্রহ থাকলে গুগল করে দেখেন।

About Author

লুৎফর রহমান নির্ঝর
লুৎফর রহমান নির্ঝর

লুৎফর রহমান নির্ঝর। জন্ম ২১ জুন ১৯৮০। রাঙ্গালীর বস, কুড়িগ্রাম। ফুলকুমার নদীর পাশে। পেশায় তথ্য-প্রযুক্তি ব্যবসায়ী। এই বাইরে একজন নাট্যকার, ফটোগ্রাফার, কবি, গল্পকার এবং মিউজিসিয়ান। বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ড্রপ-আউট। করিৎকর্মা লিমিটেডের ম্যানেজিং ডিরেক্টর।