তেঁতুল এর শরবত

তেঁতুলের ইংরেজি শব্দ ‘Tamarind’ এসেছে আরবি শব্দ  “Tomur Hindi” থেকে, যার অর্থ ইন্ডিয়ান ডেটস বা ইন্ডিয়ান খেজুর।

এটা আফ্রিকার স্থানীয় গাছ—প্রচুর পরিমাণে সুদান, সাউথ সুদান, ক্যামেরুন, নাইজেরিয়া এবং তানজানিয়াতে জন্মাত। পরে আরব বিজনেসম্যানরা তা এশিয়াতে নিয়ে আসে। এখন ইন্ডিয়াতে প্রচুর পরিমাণে চাষ হয় এবং সেখান থেকে বিভিন্ন দেশে রপ্তানি হয়।

তেঁতুলের শরবত যে শুধু স্বাদের জন্য খাওয়া যায় তা না, এর বেশ কিছু স্বাস্থ্যগত উপকারি দিকও আছে।

এতে আছে প্রচুর পরিমাণে টারটারিক অ্যাসিড, ভিটামিন সি, সুগার, ক্যালসিয়াম, পটাসিয়াম এবং আয়রন। তেঁতুল শরীরের প্রদাহ কমায়, হজমে সাহায্য করে, ওজন কমাতে সাহায্য করে, ডায়াবেটিসের ঝুঁকি কমায় এবং কোষ্ঠকাঠিন্য সারিয়ে তোলে। ফলে নিয়মিত তেঁতুল খাওয়ার মাধ্যমে আপনি এই ধরনের শারীরিক অসুবিধা খুব সহজে এড়িয়ে চলতে পারেন।

তেঁতুলের শরবত যেভাবে বানাবেন

উপকরণ: খোসা এবং বীজ ফেলে দেওয়া তেঁতুল (প্রয়োজন মতো), পানি (প্রয়োজন মতো), লবণ, চিনি (প্রয়োজন মতো, তবে যতটা কম ব্যবহার করা যায়)

তেঁতুল এর শরবত অনেক ভাবেই বানাতে পারেন, পানিতে তেঁতুল সিদ্ধ করে, দীর্ঘসময় পানিতে ভিজিয়ে রেখে, অথবা ব্লেন্ডারে ব্লেন্ড করে।

তেঁতুল সিদ্ধ করে বানাতে চাইলে, পাত্রে গরম পানি করুন। পানি ফুটলে তাতে খোসা ছাড়ানো তেঁতুল দিয়ে দিন এবং কয়েক মিনিট সিদ্ধ করুন। তারপর নামিয়ে ঠাণ্ডা হতে দিন। চাইলে পাত্রে পানিতে থাকা তেঁতুল কিছুটা কচলে নিতে পারেন। তারপর তাতে স্বাদমতো লবণ এবং চিনি যোগ করুন। তেঁতুলের শরবত রেডি।

পানিয়ে ভিজিয়ে রাখা পদ্ধতির ক্ষেত্রে পরিমাণ মতো তেঁতুল নিয়ে ভালো পানিতে অন্তত কয়েক ঘণ্টা ভিজিয়ে রাখুন। চাইলে আগের রাত্রেও ভিজিয়ে রাখতে পারেন। এইবার রসটুকু নিয়ে তাতে লবণ এবং চিনি যোগ করে আপনার তেঁতুলের শরবত পরিবেশন করুন।

শরবত বানানোর সবচেয়ে সহজ পদ্ধতি হচ্ছে ব্লেন্ড করে বানানো। তেঁতুলের ক্ষেত্রে পরিমাণ মতো পানি, তেঁতুল, চিনি, লবণ সব কিছু দিয়ে ফুল স্পিডে কিছুক্ষণ ব্লেন্ড করুন। তারপর পাত্রে ঢেলে পরিবেশন করুন, স্বাস্থ্যকর তেঁতুলের শরবত। চাইলে বরফ মিশিয়ে নিতে পারেন।