দাঁত দিয়ে নখ কাটেন?—৪ ধরনের সমস্যা হতে পারে আপনার

ওনিকোফেজিয়া বা দাঁত দিয়ে নখ কাটা খুব কমন একটি অভ্যাস। পরিসংখ্যান মোতাবেক, বিশ্বের প্রায় ২০-৩০ শতাংশ মানুষ দাঁত দিয়ে নখ কাটে।

এই অস্বাস্থ্যকর অভ্যাসটির পেছনে অনেক কারণ থাকতে পারে। যেমন অস্থিরতা, দুঃশ্চিন্তা, চাপ কিংবা খুঁতখুঁতে স্বভাব। আবার অবসেসিভ কম্পালসিভ ডিজর্ডার (ওসিডি) থেকেও অনেকের নখ কামড়ানো শুরু হয়।

দাঁত দিয়ে নখ কাটার কারণে শরীরে ব্যাকটেরিয়া আর ফাংগাস যেমন প্রবেশ করতে পারে, তেমনি এটা রোজকার সেসব ক্ষতিকর অভ্যাসগুলির একটা যাতে আপনার স্বাভাবিক আয়ু কমে যাবার আশঙ্কা থাকে।

১. নখের মধ্যে রয়েছে ক্ষতিকর সব ব্যাকটেরিয়া

ই. কোলাই ব্যাকটেরিয়া আমাদের পাকস্থলীতে বিভিন্ন ধরনের রোগের উপদ্রব ঘটায়৷ গবেষণা থেকে জানা গেছে, যারা নখ কামড়ান, তাদের মুখের লালায় এ ব্যাকটেরিয়ার পরিমাণ অন্যদের চাইতে প্রায় তিন গুণ বেশি থাকে।

একবার ভেবে দেখুন, নখের নিচে ময়লা জমলে খালি চোখেই ওই জায়গা কতটা নোংরা মনে হয়। অথবা নেইলকাটার দিয়ে নখ কাটার পর কাটা নখগুলি একসাথে জড়ো করলেও সেসব ময়লার তীব্রতা বুঝতে পারবেন৷ তাহলেই চিন্তা করুন, আপনি দেখতে পারছেন না, এমন কত ধরনের জীবাণু সেখানে থাকতে পারে!

যে ব্যাকটেরিয়াগুলি সাধারণত চামড়ার ফাঁক দিয়ে আমাদের শরীরে ঢুকে পড়ে, সেগুলি আপনার দাঁত দিয়ে নখ কাটার কারণে সহজেই মুখ দিয়ে শরীরে প্রবেশের রাস্তা পেয়ে যায়।

শুধু তাই না, নখ কামড়ানোর এই ইচ্ছাও আপনি বোধ করেন এক প্রকার ডার্মাটোফাইটিক ফাংগাসের কারণে, যা চর্মরোগ ঘটায়।

২. নখ কামড়ানো ঠাণ্ডা লাগার অন্যতম কারণ

আমাদের চারপাশে সবসময় প্রায় ২০০টি ভিন্ন প্রজাতির ব্যাকটেরিয়া ঘুরে বেড়ায় যা আপনার ঠাণ্ডা লাগার কারণ হতে পারে। যদিও এটা নির্ভর করছে আপনার রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা কিংবা অসুস্থ কারো সংস্পর্শে থাকা-না থাকার ওপর, তারপরও হাতগুলি মুখ থেকে যতটা সম্ভব দূরে রেখে আপনি ঠাণ্ডা লাগার সমস্যা থেকে আরো বেশি নিরাপদ থাকতে পারবেন।

কেননা, ঠাণ্ডা লাগা ও বিভিন্ন ফ্লু হবার জন্য দায়ী ভাইরাসগুলি সচরাচর আমাদের চামড়ার ওপরই থাকে।

৩. এমনকি দাঁতও নষ্ট হয়ে যেতে পারে

নখ কামড়ানো দাঁত ও মাড়ি উভয়ের জন্যে ক্ষতিকর। এতে আপনার সামনের পাটির দাঁতগুলি ধীরে ধীরে ক্ষয় হয় ও ফেটে যায়৷ তাছাড়া মাড়ির টিস্যু আঘাতপ্রাপ্ত হয় এতে। যার কারণে নানা জায়গায় ফুলে গিয়ে ব্যথা হতে পারে। কাজেই দেখা যাচ্ছে, আপনার হাসির স্বাভাবিক সৌন্দর্যের ওপরও এই অভ্যাস যথেষ্ট ক্ষতিকর প্রভাব রাখে।

মাউথগার্ড পরে থাকলে নখ কামড়ানোর অভ্যাস প্রতিরোধ করতে পারবেন। এর জন্যে কোনো ডেন্টিস্টের সাথে যোগাযোগ করুন, তার পরামর্শ অনুযায়ী চলুন।

৪. আঙুলে ইনফেকশন হবার ঝুঁকি বাড়ে

অনেকে এমন আছেন শুধু নখ কামড়েই ক্ষান্ত হন না, নখের নিচে ও আশেপাশে থাকা চামড়াও তুলে ফেলেন। নখের আশপাশের চামড়ায় এসব ফাঁকফোকরের কারণে ব্যাকটেরিয়া ভেতরে ঢুকে যায় সহজে, ফলে ইনফেকশন ছড়ানোর আশঙ্কা বাড়ে। ‘ক্রনিক প্যারোনিকিয়া’ নামে পরিচিত চামড়ার এই ইনফেকশন সারাতে অনেক সময় সার্জারিও করতে হয়।

তাছাড়া আঙুলের অনেক গভীর পর্যন্ত নখ কামড়ানোতে আমাদের নখের স্বাভাবিক আকার নষ্ট হয়ে যায়, যা পরবর্তীতে আর কখনোই আগের আকৃতিতে ফিরে আসে না।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here