শ্বাসকষ্ট বা হাঁপানি থাকলে করোনা ভাইরাস সম্পর্কে যা জানবেন

হাঁপানি

হেলদি ডে নিউজে (গত ১৯ মার্চ ২০২০ বৃহস্পতিবার) আমেরিকান কলেজ অফ অ্যালার্জি, অ্যাজমা অ্যান্ড ইমিউনোলজি (এসিএএআই) জানায়, শ্বাসকষ্ট থেকে থাকলে এই করোনা ভাইরাস মহামারিতে আপনি সবচেয়ে বেশি ঝুঁকিতে আছেন।

এই পরিস্থিতিতে শ্বাসকষ্ট নিয়ন্ত্রণে রাখা খুবই জরুরি। সে জন্যে নিয়মিত ওষুধ খাওয়া, নিয়ম মেনে চলাসহ যা কিছু সম্ভব করুন।

এসিএএআই এর মতে, শ্বাসকষ্টের ওষুধ যেমন কর্টিকোস্টেরয়েড এবং বায়োলজিকস করোনা আক্রান্ত হওয়ার ঝুঁকি কমাতে পারে। গ্রুপটি আরো বলছে, আক্রান্ত হলেও শ্বাসকষ্টের ওষুধ আপনার সংক্রমণ আরো বাড়িয়ে দিবে এমন কোনো তথ্য পাওয়া যায়নি।

এ বিষয়ে কোনো প্রশ্ন থেকে থাকলে, শ্বাস নিতে সমস্যা হলে বা শ্বাসকষ্ট আরো তীব্র হয়ে ‌উঠলে, এসিএএআই-এর পরামর্শ, দ্রুত আপনার অ্যালার্জিস্টের সাথে যোগাযোগ করুন।

বাকিদের মধ্যে করোনা আক্রান্ত হওয়ার সবচেয়ে বেশি ঝুঁকিতে আছেন বয়স্করা এবং ইমিউনোডেফিসিয়েন্সি বা অন্যান্য দীর্ঘস্থায়ী রোগাক্রান্ত ব্যক্তিরা। যাদের ইমিউন সিস্টেম দুর্বল।

আপাতত সবার প্রতি তাদের পরামর্শ, নেবুলাইজার যারা ব্যবহার করবেন সঠিকভাবে ব্যবহার করুন এবং নিয়মিত পরিষ্কার করুন।

এখন পর্যন্ত ৮০% করোনা ভাইরাসের কেইস ছিল হালকা এবং সীমিত সময়ের জন্য। উপসর্গ হিসেবে জ্বর, কাশি এবং শ্বাসকষ্ট অন্তর্ভুক্ত দেখা গেছে।

এর বাইরে সুস্থ ব্যক্তিদের প্রতি ইউ.এস সেন্টারস ফর ডিজিজ কন্ট্রোল অ্যান্ড প্রিভেনশনের উপদেশ অনুসরণ করার পরামর্শ দিচ্ছে এসিএএআই। তাদের পরামর্শগুলি হলো:

  • অসুস্থ ব্যক্তি থেকে অন্তত ৬ ফুট দূরে থাকুন
  • হাত দিয়ে চোখ, নাক বা মুখ ছোঁবেন না
  • অন্তত ২০ সেকেন্ডের জন্য সাবান এবং পানি দিয়ে দুই হাত ঘন ঘন ধুয়ে নিন। অথবা এমন হ্যান্ড স্যানিটাইজার ব্যবহার করুন যেটাতে কমপক্ষে ৬০% অ্যালকোহল আছে
  • কাশি এবং হাঁচি দেওয়ার সময় টিস্যু ব্যবহার করুন। তারপর অবিলম্বে সেটা কোনো নির্দিষ্ট বন্ধ জায়গায় ফেলে দিন
  • যে সকল বস্তু ও পৃষ্ঠতল প্রায়ই স্পর্শ করতে হয় তা জীবাণুনাশক ব্যবহার করে পরিষ্কার রাখুন
  • আক্রান্ত হলে বাড়িতে থাকুন

সূত্র. ওয়েবএমডি