স্করসেজির ‘দ্য আইরিশম্যান’ এর মুক্তি আবারও পেছালো

রবার্ট ডি নিরোকে একই সাথে বৃদ্ধ এবং তরুণ অবস্থায় দেখানোর জন্য কম্পিউটার জেনারেটেড ইম্যাজেরি (সিজিআই) ব্যবহার করা হচ্ছে।
Continue reading

গার্দিওলা জুভেন্টাসে যাচ্ছেন, এমন গুজবের কোনো ভিত্তি নেই—আলবার্তো গালাসি

গার্দিওলা জুভেন্টাসে যাচ্ছেন, এমন গুজবের কোনো ভিত্তি নেই—আলবার্তো গালাসি
Continue reading

ট্যারান্টিনোর নতুন সিনেমা ডিস্ট্রিবিউট করবে সনি পিকাচার্স

হলিউড ফিল্ম ডিরেক্টর কুয়েন্টিন ট্যারান্টিনো তার প্রায় সব সিনেমা তৈরি করেছেন প্রযোজক ও পরিবেশক হার্ভি ওয়াইন্সটিনের সাথে। কিন্তু ২০১৭ সালের অক্টোবর মাসে হার্ভির নামে ৫০ জনেরও বেশি মহিলা ধর্ষণ ও যৌন হয়রানির অভিযোগ করলে তাকে নিজের প্রযোজনা সংস্থা ‘ওয়াইন্সটিন কোম্পানি’ থেকে বহিষ্কার করা হয়। সেই সাথে সোশ্যাল মিডিয়ায় হলিউডের যৌন হয়রানি সংশ্লিষ্ট ঘটনা প্রকাশের উদ্দেশ্যে চালু হয় ক্যাম্পেইন, যার ফলে অভিনেতা কেভিন স্পেসি, কমেডিয়ান লুইস সি.কে এবং পরিচালক ব্রেট র‍্যাটনার একইভাবে অভিযুক্ত হয়েছেন। মিডিয়ায় এই ঘটনাকে ‘ওয়াইন্সটিন ইফেক্ট’ নামে উল্লেখ করা হচ্ছে।

কাজেই ট্যারান্টিনো তার নতুন সিনেমার পরিবেশকের খোঁজে প্রথমবারের মতো অন্যান্য স্টুডিওর কাছে ধরনা দিয়েছেন। তার সিনেমার ডিস্ট্রিবিউটরের দায়িত্ব পাওয়ার জন্য হলিউডের প্রথম সারির স্টুডিওগুলির মাঝে নিলাম ডাকা হয়। কেবল ডিজনী এই নিলামে অংশ নেয় নাই, কারণ তারা ‘আর-রেটেড’ সিনেমা মুক্তি দেয় না। নিলাম শেষে ট্যারান্টিনোর নতুন সিনেমার ডিস্ট্রিবিউটর হিসাবে নিযুক্ত হয়েছে সনি পিকচার্স।

ষাট ও সত্তর দশকের কুখ্যাত খুনী চার্লস ম্যানসনকে নিয়ে বানানো হয়েছে ট্যারান্টিনো’র নতুন সিনেমার গল্প। তবে এর কেন্দ্রীয় চরিত্রে ম্যানসন থাকবেন না; এখনো পর্যন্ত পাওয়া তথ্যমতে, দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের কাহিনি নিয়ে ট্যারান্টিনোর ২০০৯ সালের ছবি ‘ইনগ্লোরিয়াস বাস্টার্ডস’ এর অ্যাডলফ হিটলারের মতো হবে সেই চরিত্রের পরিধি। কাস্টিংয়ের জন্য অস্কারজয়ী অভিনেত্রী জেনিফার লরেন্সের সাথে ট্যারান্টিনোর কথাবার্তা হয়েছিল, এছাড়া দুই পুরুষ কেন্দ্রীয় চরিত্রে লিওনার্দো ডিক্যাপ্রিও, ব্র্যাড পিট কিংবা টম ক্রুজের কথা উল্লেখ করা হয়েছে। পরিচালক রোমান পোলানস্কির প্রাক্তন স্ত্রী অভিনেত্রী শ্যারন টেইটের চরিত্রে (যাকে চার্লস ম্যানসনের দল হত্যা করেছিল) অস্ট্রেলিয়ান মারগো রবি’র অভিনয় করার কথা রয়েছে। তবে এখনো কোনো কিছু নিশ্চিত করা হয় নি।

অভিনেত্রী মারগো রবি (বামে) এবং শ্যারন টেইট

সনি পিকচার্সের হেড টম রথম্যানের সাথে দীর্ঘ আলোচনার পর কুয়েন্টিন তাদের সাথে কাজ করতে আগ্রহী হয়েছেন। ফিল্ম ইন্ডাস্ট্রিতে কুয়েন্টিন ট্যারান্টিনোর মতো সিনেমা সম্পর্কিত জ্ঞান খুব কম মানুষেরই আছে, তাই এক্ষেত্রে রথম্যানের ফিল্ম হিস্টোরি নিয়ে গভীর ধারণা সনি পিকচার্সের জন্য সহায়ক হয়েছিল। সনির সাথে ট্যারান্টিনোর চুক্তিবদ্ধ হওয়ার খবরটি অনলাইনে ফাঁস হয়ে যাবার পর রথম্যান ইমেইলের মাধ্যমে এর সত্যতা নিশ্চিত করেন।

সনি পিকচার্সের হেড টম রথম্যান

২০১৮ সালের মাঝমাঝিতে এর শুটিং শুরু হবে, আর ২০১৯ সালে ছবিটি মুক্তি দেওয়ার কথা রয়েছে। এটি হবে ট্যারান্টিনোর ক্যারিয়ারের ৯ নম্বর সিনেমা, তাই এর ওয়ার্কিং টাইটেল ঠিক করা হয়েছে #৯। ১০ টা সিনেমা বানানোর পরই অবসর নিবেন বলে এর আগে জানিয়েছিলেন তিনি।

সূত্র. ডেডলাইন

উইট, বুদ্ধির কঙ্কাল

১.
ফেসবুকে যারা লেখালেখি করেন সদর্থেই তাদের সবাই লেখক। তাদের নিজ নিজ টোটাল লেখালেখির দৈর্ঘ্য বিচার করতে গেলে প্রত্যেকেরই মোটামুটি দশটা বিশটা বই হইয়া যাবে ইতিমধ্যে।

অপ্রকাশিত সব সারমর্ম মূলক বই। আমি এই লেখালেখির পক্ষে আছি সব সময়।

এই যে এত এত লেখক তাদের প্রত্যেকেরই একটা একটা নিজস্ব ওয়ে অব এক্সপ্রেশন আছে। তা থাকবেই। লেখকদের ভিন্ন ভিন্ন বলার ভঙ্গি তো থাকবেই। কিন্তু তাদের মধ্যে কমন কিছু জিনিস আছে। তাগুলি কী কী?

দুর্ভাগ্যজনক একটা হইল: সবার প্রকাশভঙ্গিরেই বুদ্ধিবৃত্তিক মানদণ্ড দিয়া বিচার করা যায়।

অর্থাৎ স্মার্ট বুদ্ধিবৃত্তির ‘উইট’ নামক মাপক দিয়া এরা নিজেদের গড় কইরা রাখতেছেন। উইটের বাংলা অনেক আছে, আমি আপাতত করলাম—বুদ্ধিহাসি। বা টেটনাহাসি।

তীক্ষ্ণতা বা টেটনামির কারণে উইটরে মনে হবে হাস্যরস ও বুদ্ধির সমন্বয়। বস্তুত তা নয়। উইট হইল অন্যের সঙ্গে, বা বিদ্যমান ক্ষমতা কাঠামোর সঙ্গে যোগাযোগের পরিহাস পদ্ধতি। আত্মপরিহাস। তাতে হাস্যরস নামে যা আছে তা হাসির কঙ্কাল। রুচির নামে এই কঙ্কাল স্বাস্থ্য হিসাবেই গৃহীত আছে আর্টের জগতে। তা থাকা মনে হয় সমস্যাজনকই।

২.
ক্ষমতা, অর্থ ইত্যাদি ক্ষেত্রে মিডল ক্লাস নিজের অভাব পূরণের চেষ্টা করে উইট দিয়া। উইট জিনিসটা মিডল ক্লাসরে ক্ষমতাসীন বা বিত্তশালীদের বন্ধু থাকতে হেল্প করে। উইট দিয়া মিডল ক্লাস বিত্তশালীদের আউটস্মার্ট কইরা তাদের প্রিয়ভাজনও হইতে পারে। ঢাকাই টকশোতে এর দেখা পাইবেন অহরহই।

উইটই সেই কারণ যার কারণে বিত্তশালী নিজের নিচে হইলেও নিজেদেরই আপাতত একজন ধইরা নেয় উইটসমৃদ্ধ মিডল ক্লাস বা মিক্লারে।

তাই উইট একটি বিকল্প ধারা। যারা উইটের শরণ লন তারা মূলত নিজেদেরকে গ্রেটার্থে পরিহাসই করতেছেন উইটসর্বস্ব হওয়ার মাধ্যমে।

৩.
মিডল ক্লাসের যদি নিজের পন্থা না থাকে বা তার উদ্ভাবন সম্ভব না হয় তবে উইট দিয়াই বিকল্প ক্ষমতার সাধ লইতে হবে। কারণ ক্ষমতা দরকার। চেঞ্জের জন্যেই দরকার। উইট কেন্দ্রিকতার সম্ভাব্য অ-ফলাফল: রাজনৈতিক ভাবে সমাজের রূপান্তর সম্ভব হবে না।

ক্ষমতার বারান্দায় অল্পে তুষ্ট থাইকাই বুদ্ধিজীবীদের জীবন শেষ করতে হবে।

নয়তো?

নয়তো নিজেদের জন্যে নিজেদের যে সামাজিক ভ্যালু তাতে উইটরে বা বিকল্পরে অত জায়গা দেওয়া যাবে না। উইট টুইট করেন ঠিক আছে, নিজের অনুভূতিটা না লুকাইয়া বা নিজেরে ছোট না ভাইবাই বলতে পারতে হবে। হীনম্মন্যতা ঢাকার টুল বানাইয়েন না উইটরে।

এবং তা ফেসবুকেও। বিত্তশালীদের অনুভূতিহীন ডিটাচমেন্টের চারা উৎপাদনের ক্ষেত্র হিসাবে ফেসবুক বা শিল্পকলা বা লেখালেখিরে কেবল উইটের চাষাবাদে বর্গা দেওয়া যাবে না।

নিজের কান্দনটাও মাঝে মাঝে হাসিহীন, হাসির কঙ্কালহীন কানতে পারতে হবে।

তেমনি হাসি-কান্না-টিভি নাটকের বাইরে আর আর যে রস আছে তারও চর্চা চলতে পারে এখানে।

কেবলই বুদ্ধি মারাইলে হবে না।

২৬/২/২০১৯